biggapon ad advertis বিজ্ঞাপন এ্যাড অ্যাডভার্টাইজ XDurbar দূর্বার 1st gif ad biggapon animation বিজ্ঞাপন এ্যানিমেশন biggapon ad advertis বিজ্ঞাপন এ্যাড অ্যাডভার্টাইজ
ঢাকাSunday , 30 July 2023
  1. অন্যান্য
  2. অর্থ ও বাণিজ্য
  3. আইন-বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. কৃষি ও প্রকৃতি
  7. খেলাধুলা
  8. গণমাধ্যম
  9. চাকরি
  10. জাতীয়
  11. ধর্ম
  12. নির্বাচন
  13. প্রবাসের খবর
  14. ফিচার
  15. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
Xrovertourism rovaar ad বিজ্ঞাপন
আজকের সর্বশেষ সবখবর
  • শেয়ার করুন-

  • Xrovertourism rovaar ad বিজ্ঞাপন
  • ৪৬ বছর বয়সী রহিমার এসএসসি জয়

    Link Copied!

    ৩৬ বছর বয়সে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন কুড়িগ্রামের মোছাঃ রহিমা বেগম। শুধু তাই নয় সেই পরীক্ষায় জিপিএ ৩.৬০ পেয়ে পাস করে দৃষ্টান্তও স্থাপন করেছেন তিনি।

    শুক্রবার (২৮ জুলাই) এসএসসি সমমান পরীক্ষায় কুড়িগ্রাম কাঁঠালবাড়ি মহিউস সুন্নাহ মহিলা দাখিল মাদ্রাসা থেকে এবারের দাখিল পরিক্ষায় মানবিক বিভাগ থেকে পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেন তিনি।

    রহিমা কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার খলিলগঞ্জ নাজিরা পাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি মোঃ আছর উদ্দিনের মেয়ে ও মোঃ আব্দুল জলিল সরকার মজনুর স্ত্রী। রহিমা পেশায় একজন ভাতাপ্রাপ্ত চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী। তিনি কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজে কর্মরত আছেন।

    খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রহিমা বেগম চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে আর পড়তে পারেননি। সংসারে এক মেয়ে ও এক ছেলে আছে। ছেলে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজে মাস্টার্স শেষবর্ষে পড়াশোনা করছে। মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। মেয়ের ঘরে এক ছেলে আছে। কয়েক বছর ধরে মেয়ের ছেলেকে নিয়ে স্কুল যাওয়া আসা করতে করতে পড়াশোনায় আবার উজ্জীবিত হন তিনি। সবশেষে কুড়িগ্রাম কাঁঠাল বাড়ি মহিউস সুন্না মহিলা মাদ্রাসা থেকে দাখিল পরীক্ষা দিলে জিপিএ ৩.৬৭ পেয়ে উত্তীর্ণ হন তিনি। এ বয়সে পাস করায় পরিবার আত্মীয় স্বজন ও সহকর্মীদের অভিনন্দন ও ভালোবাসায় মুগ্ধ হয়েছেন রহিমা বেগম।

    আরও পড়ুন-   লক্ষ্মীপুরে শিক্ষক নেতাদের সংবাদ সম্মেলন

    রহিমা বেগম বলেন, ‘লোক লজ্জা আর বয়সের ভয় না করে আমি পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছি। চতুর্থ শ্রেণির পর পড়াশোনা বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ এতো বছর পর আবার পড়াশোনা শুরু করি। আলহামদুলিল্লাহ এ বছর এসএসসি পাস করলাম। আমার পড়াশোনা করার ব্যাপারে আমার ছেলে-মেয়ে ও সহকর্মীরা উৎসাহ দিত। আমার ইচ্ছে পড়াশোনা চালিয়ে যাবো।’

    রহিমা বেগমের মেয়ে মোছাঃ মজিদা আক্তার পপি বলেন, ‘মা এই বয়সে এসে সংসার ও চাকরি করার পরও পরীক্ষায় পাস করবে জানতাম না। আমার মায়ের জন্য সবার কাছে দোয়া চাই।’

    কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মির্জা মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন বলেন, ‘রহিমা বেগম আমাদের কলেজের একজন কর্মচারী। তিনি চাকরি করার পর দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে মাদরাসায় যেতেন। এ বছর এসএসসি/সমমান পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে জিপিএ ৩.৬০ অর্জন করেছে। বয়স কিংবা অন্য কোনো বাধা তাকে আটকাতে পারেনি। পড়াশোনায় মাঝপথে কিংবা শুরুতে থেমে যাওয়া যেকোনো মানুষের জন্য রহিমা এক অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন। যে কোনো বয়সেই যে শিক্ষা অর্জন করা যায় রহিমা নিঃসন্দেহে তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে রহিমাকে অভিনন্দন। তিনি আমাদের কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণীতে ভর্তি হতে চাইলে তাকে সর্বপ্রকারের সহযোগিতা করা হবে।’

    শীর্ষসংবাদ/নয়ন

    biggapon ad advertis বিজ্ঞাপন এ্যাড অ্যাডভার্টাইজ

    Share this...

    বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বে-আইনি।
    ঢাকা অফিসঃ ১৬৭/১২ টয়েনবি সার্কুলার রোড, মতিঝিল ঢাকা- ১০০০ আঞ্চলিক অফিস : উত্তর তেমুহনী সদর, লক্ষ্মীপুর ৩৭০০
    biggapon ad advertis বিজ্ঞাপন এ্যাড অ্যাডভার্টাইজ  
  • আমাদেরকে ফলো করুন…