করোনার মধ্যেও যে তিন ছবির শুটিং শেষ করেছেন জয়া

করোনার কারণে চলতি বছরের মার্চের মাঝামাঝি থেকেই বন্ধ ছিলো শুটিং। দীর্ঘদিন ঘরে বসে থেকে বিরক্ত হচ্ছিলেন কাজ পাগল মানুষেরা। তাদেরই একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। তাই পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হওয়া মাত্রই শুটিংয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী এই অভিনেত্রী।

করোনা পরিস্থিতিতে কাজ নিয়ে তার ভাষ্য, ‘একটা সময় গিয়ে মনে হলো আমি আর কতো বসে থাকবো, কাজ না করে থাকবো? মানে গাছকে তো মাটি থেকে সরিয়ে নিলে গাছ বাঁচে না, মাছ যদি জলে সাঁতার না কাটতে পারে তাহলে তো বাঁচে না। তো আমার কাজ অভিনয় করা, এটা আমাকে করতেই হবে।’

সেই ভাবনা থেকেই করোনার মধ্যে ‘হাসিনা: ডটারস টেল’ খ্যাত নির্মাতা পিপুল খানের পরিচালনায় নতুন একটি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন জয়া। কাজটি নিয়ে তিনি বলেন, ‘ওই ছবিটি কিছুটা এক্সপেরিমেন্টাল, কিন্তু দারুণ কাজ হয়েছে।’

পিপলু খানের সিনেমাটি ছাড়াও জয়া আরো দুটি পূর্ণদৈর্ঘ্য’র শুটিং শেষ করেন বলে জানান। এরমধ্যে আছে মাহমুদ দিদার পরিচালিত বহুল প্রতীক্ষিত ছবি ‘বিউটি সার্কাস’। জয়া বলেন, ‘চ্যানেল আইয়ের (ইমপ্রেস টেলিফিল্ম) একটি ছবি ‘বিউটি সার্কাস’, সেটার কিছু শুটিং বাকি ছিলো, এরমধ্যে সেটাও শেষ করলাম। ‘নক্সীকাঁথার জমিন’ নামে আকরাম খানের পরিচালনায় আরো একটি পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবির শুটিং শেষ করলাম, ছবিটি সরকারি অনুদানে নির্মিত। করোনার মধ্যে মোট তিনটি ছবির কাজ অলমোস্ট শেষ করেছি।

বুধবার রাতে জয়া আহসান এসেছিলেন ‘দারাজ ইলেভেন ইলেভেন শো’তে। মারিয়া নূরের উপস্থাপনায় চ্যানেল আইয়ে প্রচারিত সেই অনুষ্ঠানে তিনি সিনেমা নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথাও শেয়ার করেন। জানান, অভিনয়ের বাইরে প্রযোজনা নিয়েও সব পরিকল্পনা পাকাপোক্ত ছিলো। কিন্তু করোনার কারণে সেটা থেমে আছে। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিগগির নিজের প্রযোজনায় দ্বিতীয় সিনেমা শুরু করবেন।

এদিকে করোনার কারণে কলকাতায় অন্তত ছয় থেকে সাতটি ছবির মুক্তি আটকে আছে বলেও জানান জয়া। এরমধ্যে আছে কৌশিক গাঙ্গুলী পরিচালিত অর্ধাঙ্গীনি, আছে জীবনানন্দ দাশের জীবনী নির্ভর একটি ছবি।

সামনে আরো কিছু নতুন প্রজেক্ট নিয়ে কথা পাকাপোক্ত আছে বলেও জানান জয়া। তার ভাষ্য, ‘খুব তাড়াতাড়ি হয়তো কলকাতায় গিয়ে আরো কিছু নতুন সিনেমার শুটিং করতে হবে। এরমধ্যে একটি আছে শিলাদিত্যের পরিচালনায়।

Print Friendly, PDF & Email