গ্রেপ্তারের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে নুরকে

গ্রেপ্তারের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরকে।
আজ সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাত সোয়া দশটার দিকে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, নুরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এর আগে রাত সাড়ে ৮টার দিকে রাজধানীর শাহবাগের মৎস ভবন এলাকা থেকে নুরসহ তার ৬ জন অনুসারীকে গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ।
গ্রেপ্তারের আগে এক ফেসবুক লাইভে নুর বলেন, ধর্ষণ সেনসেটিভ বিষয়। গ্রেফতার হতে পারি। আমি বলব, জেল না খাটলে তো নেতা হওয়া যায় না। আমরা যেহেতু মানুষের অধিকার আদায়ে কাজ করছি, জেল তো খাটতেই হবে তিনি। বলেন, গ্রেফতার করলে কী করে, বলা তো যায় না। বিএনপির অনেক নেতাকে মেরে ফেলা হয়েছে। তবে আল্লাহ না চাইলে কিছুই হবে না। আমরা নীতি-নৈতিকতা ঠিক রেখে আন্দোলন চালিয়ে যেতে চাই।
নুরুল হক নুর বলেন, ‘ভিপি নুর আলোচিত ছাত্রনেতা। তার বিরুদ্ধে মামলা হবে এটাই স্বাভাবিক। তিনি বলেন, মামলা একটা কেন, শতাধিক হবে। ধর্ষণের মামলা হয়েছে, খুনের মামলা হবে। টাকা পাচারের মামলা হয়নি, এটা ভালো খবর।’ তিনি আরো বলেন, ভিপি নুরের চরিত্র হননের জন্য মামলা হবে। ছাত্রলীগ মিছিল করবে, যুবলীগ মাঠে নামবে; এটাই স্বাভাবিক।
এদিকে নুরুল হক নুরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে করা মামলা ভিত্তিহীন ও বানোয়াট বলে দাবি করেছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ ও যুব অধিকার পরিষদ। আজ সোমবার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ মিছিলের আয়োজন করেছে সংগঠনটির নেতারা।
বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মোহাম্মদ রাশেদ খান বলেন, নুরুল হক নুরসহ আমাদের সহযোদ্ধাদের বিরুদ্ধ করা মিথ্যা ও বানোয়াট মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। বারবার আমাদেরকে দমন করার জন্য এভাবে ভিত্তিহীন মামলা দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে। কিন্তু তারা এসব প্রমাণ করতে প্রতিবারই ব্যর্থ হয়েছে।
রাশেদ খান বলেন, আমাকেও ভিসির বাসভবনে হামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছিল। কিন্তু তারা সেটিও প্রমাণ করতে পারেনি। এছাড়া এরআগেও বিএনপির তারেক রহমানের সাথে নুরুল হক নুরের ভুয়া চ্যাটিং ভাইরাল করে আমাদের দমানোর চেষ্টা করা হয়েছিল। আমাদের কোন হামলা-মামলা দিয়ে দমানো যাবে না।

Print Friendly, PDF & Email