লক্ষ্মীপুর সরকারি চাল-গম জব্দ ও সিলগালার ঘটনায় পৃথক তদন্ত কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দু’দিনে লক্ষ্মীপুরের দুই উপজেলায় সরকারি চাল-গম উদ্ধার ও আড়ত সিলগালার ঘটনায় পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। লক্ষ্মীপুর শহরের ধানহাটা এলাকার নিজাম ষ্টোরে সরকারি চাল মুজুদ সন্দেহে আড়ত সিলগালা করার ঘটনায় গত শনিবার সকালে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিক। অপর দিকে কমলনগরে সরকারি ১২৬ টন চাল-গম উদ্ধারের ঘটনায় পৃথক ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোবারক হোসেন। আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত পূর্বক পৃথক প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

সোমবার (৭জুলাই) রাতে দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুর সদর খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাইমুল কবির টিটু।

খাদ্য গুদাম কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে সরকারি চাল মজুদ সন্দেহে লক্ষ্মীপুর বাজারের ধানহাটার নিজাম ষ্টোর সিলাগালা করা হয়। এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে কমলনগর উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা রাজীব চন্দ্র রায়কে প্রধান ও রায়পুর উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা হিমু চাকমা এবং সদর উপজেলা খাদ্য গুদাম পরিদর্শক তানিয়া সুলতানাকে সদস্য করা হয়।

অপরদিকে গত বৃহস্পতিবার কমলনগর উপজেলা হাজিরহাট বাজারে শেখ ফরিদ উদ্দিন নামে এক ব্যবসায়ীর পৃথক তিনটি গোডাউন থেকে ১২৬টন চাল-গম উদ্ধার ও গোডাউন সিলগালার ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে রামগঞ্জ উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিনকে প্রধান করে রামগতি আলেকজান্ডার খাদ্যগুদামের পরিদর্শক সালাহ উদ্দিন ও রায়পুর উপজেলা খাদ্যগুদাম কর্মকর্তা হিমু চাকমাকে সদস্য করে তদন্ত কমিটি করা হয়। দায়িত্ব প্রাপ্তগণদের প্রতি আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশনা রয়েছে।

এদিকে জেলায় দু’দিনে পৃথক স্থান থেকে সরকারি খাদ্য গুদামের চাল-গম উদ্ধারের ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তারা জানায়, দেশে মহামারি মুহুর্তে যেখানে সরকার খাদ্য সহায়তা দিয়ে গরিব দুস্থ্যদের পাশে দাঁড়াচ্ছে। এ সংকট মুহুর্তে সেই সুযোগকেই কাজে লাগিয়ে অসাধুরা সরকারি চাল-গম গায়েম করে দিচ্ছে। তাছাড়া কোন জবাবদিহিতা ছাড়াই চুরি করে ব্যবসায়ীদের কাছে সরকারি চাল-গম সরবরাহ করা হচ্ছে বলে তাদের অভিযোগ। এতে সরকারই ক্ষতির স্মুখীন হচ্ছেন। এর সাথে সংশ্লিষ্ট দায়িত্ব প্রাপ্তরাও জড়িত থাকতে পারে বলে স্থানীয়দের দাবী। বিষয়টি তদন্তপূর্বক দোর্ষীদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনার দাবী তাদের।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার বিকেল থেকে লক্ষ্মীপুর ধানহাটা এলাকার নিজাম ষ্টোরে অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় ওই প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়ী নিজাম পালিয়ে যায়। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রিদোয়ান আরমান শাকিক ঘটনাস্থলে পৌছে সরকারি চাল মজুদ সন্দেহে ওই আড়তটি সিলগালা করেন। অপরদিকে এর আগের দিন বৃহস্পতিবার কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট বাজার এলাকায় শেখ ফরিদ উদ্দিন নামে এক ব্যবসায়ির ব্যক্তিগত তিনটি গোডাউন থেকে ৯৬ টন সরকারি চাল এবং ট্রাক ভর্তি ২০ টন গম উদ্ধার করে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই)। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোবারক হোসেন ঘটনাস্থলে পৌছে চাল ও গমগুলো জব্দ করে ও গোডাউন সিলগালা করেন।

Print Friendly, PDF & Email