লক্ষ্মীপুরে রোববার ও বৃহস্পতিবার বসবে কাঁচাবাজার ও নিত্যপণ্যের হাট

নিজস্ব প্রতিবেদক :  

লক্ষ্মীপুর জেলা শহরের পৌরসভায় রেডজোন হিসেবে চিহিৃত লকডাউনকৃত এলাকায় সপ্তাহে দুই দিন রোববার ও বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত চলবে বেচা-কেনা। এসময় সর্বস্থানের মানুষ এসে বেচা-কেনা করতে পারবে। শুধুমাত্র কাঁচাবাজার ও নিত্যপণ্যের (মুদি দোকান) খোলা থাকবে।

তবে এসময় অন্য সবধরণের শপিংমল ও দোকান-পাট বন্ধ থাকবে। এ কার্যক্রম চলবে আগামী ৩০ জুন অর্থাৎ ঘোষিত লকডাউনের সময় সীমা পর্যন্ত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুর বণিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল আজিজ। বাজারের ব্যবসায়ীদের অনুরোধে গত শুক্রবার রাতে এমন সিদান্ত দেয় জেলা প্রশাসন।

গত ১৬ জুন রাতে লকডাউন ঘোষনার পূর্বেই পঁচনশীলসহ বেশ কয়েকটি কাঁচামাল এবং নিত্যপণ্য মজুদ করে বাজারের আড়ৎদার ও ব্যবসায়ীরা। লকডাউনের ফলে এসব মালামাল নষ্ট হয়ে কয়েক কোটি টাকা ক্ষতি সাধনের আশংকা করে তারা। একপর্যায়ে বণিক সমিতির নেতারা এসব বিষয়ে জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পালের নিকট অবহতি করে। পরবর্তীতে ব্যবসায়ীদের দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে সাপ্তাহিক দুদিন বেচাকেনার মৌখিক সিদ্ধান্ত দেয় জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল।

এ বিষয়ে বণিক সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল আজিজ বলেন, বিগত সময়ে লকডাউন দেয়া হয়েছে বণিক সমিতির সাথে আলোচনা করে। একদিন আগে যেখানে মাইকিং করা হয় এবং ব্যবসায়ীদের পূর্ব ঘোষনা দেয়া হয়। অথচ গত ১৫ জুলাই পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই রাত ১১ টায় মাইকিং করা হয় পরেরদিন লকডাউন। এতে ব্যবসায়ীরা বিপাকে পড়ে যায়। তিনি বলেন প্রতিটি আড়ৎদার এবং বড় বড় ব্যবসায়ীরা লাখ লাখ টাকার আম-জাম, পেঁয়াজসহ বেশ কয়েক আইটেমের কাঁচামাল মজুদ করে রাখে। লকডাউনের ফলে দুদিনের মাথায় বেশ কয়েকটি গুদামের কাঁচামাল পঁচন ধরেছে। এমতাবস্থায় প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত রোববার ও বৃহস্পতিবার সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত ওইসব প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা হবে। এবং বেচাকেনা হবে। নিদিষ্ট সময়ের পর নিজ দায়িত্বে সকল দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়ার দায়িত্ব নেন বণিক সমিতির নেতারা।

Print Friendly, PDF & Email