লক্ষ্মীপুরে ‘চেন্জ ফর ফিউচার’-এর বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার টুমচর গ্রামে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন করেছে নব গঠিত স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন ‘চেন্জ ফর ফিউচার’ (Change for Future)। বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে শুক্রবার (৫ জুন) বিকালে স্থানীয় ৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন বাড়ির আঙ্গিনায় বনজ, ফলজ ও ভেষজ গাছ রোপণের মধ্য দিয়ে এ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি। এসময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম নোবেল, সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান সোয়েব, সাধারণ সম্পাদক মাহফুজ আহমেদ এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহাদাত কামাল। আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক মো. রাসেল আহমেদ নিলয়, শিক্ষা বিষয়ক সহ-সম্পাদক কামরুল হাসান, ক্রীড়া-বিষয়ক সম্পাদক কামরুল হাসান শিবলী, পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক মো. শরিফ। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সদস্য মাহমুদুল হাসান অপু, নাইমুর রহমান আরজু, আরাফাতুল ইসলাম রিপাত, শিহাবুল ইসলাম প্রমুখ।
বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি সম্পর্কে জানতে চাইলে সংগঠনের সভাপতি গণমাধ্যমেকে বলেন,
বিশ্ব পরিবেশ যে মহা সংকটে পড়েছে সে সংকটের অন্যতম প্রধান কারণ প্রয়োজনীয় বনায়নের অভাব। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে একটি দেশের মোট আয়তনের কমপক্ষে ২৫ ভাগ বনভূমির প্রয়োজন। কিন্তু বাংলাদেশের আয়তনের মাত্র ১৩.২ ভাগ বনভূমি (সূত্র: বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা ২০১৯)। যা আমাদের দেশের অস্তিত্বের জন্যে হুমকি। জাতিসংঘ বাংলাদেশকে সতর্ক করে বলেছে আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে এদেশের ৩ কোটি মানুষ জলবায়ুজনিত কারণে ঈষরসধঃব ৎবভঁমবব হবে। তাছাড়া বিভিন্ন আবহাওয়াবিদ বাংলাদেশকে সতর্ক করে বলেছেন আগামী ১০০ বছরে বাংলাদেশের বিস্তীর্ণ অংশ পানিতে নিমজ্জিত হবে। এ ভয়াবহ হুমকির অন্যতম প্রধান কারণ বৃক্ষনিধন ও স্বল্প বনায়ন। এসব দিক বিবেচনায় সংকটাপন্ন বাংলাদেশকে রক্ষা করতে আমরা প্রথমে আমাদের গ্রাম থেকে এ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। আমরা প্রত্যাশা করছি প্রতিটি গ্রামে সবাই গাছ লাগিয়ে প্রিয় বাংলাদেশকে রক্ষা করবেন।
জানা যায়, গত ১ জুন স্থানীয় পশ্চিম টুমচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে যুব সমাজের উদ্যোগে এক সভা আয়োজনের মধ্য দিয়ে সংগঠনটির আত্মপ্রকাশ ঘটে। পরে ৪০ সদস্যের মধ্যে ভোট অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ২৩ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।
বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও সাবেক ছাত্রনেতা এ এফ এম জসীম উদ্দিন আহমদ সংগঠনটির উপদেষ্টা ও পৃষ্টপোষক বলে জানা গেছে।

Print Friendly, PDF & Email