চার উপজেলায় বজ্রপাতে ৪ কৃষক নিহত

সুনামগঞ্জ: সুনামগঞ্জের চার উপজেলায় বজ্রপাতে ৪ কৃষক নিহত হয়েছেন। শনিবার (১৮ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১২টার মধ্যে শাল্লা, জগন্নাথপুর, দিরাই ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জে এসব ঘটনা ঘটে।

শাল্লায় নিহত কৃষকের নাম শংকর সরকার (২২)। তিনি হবিবপুর ইউনিয়নের নারায়ণপুর গ্রামের সুরেন্দ্র সরকারের ছেলে। একই সময়ে জগন্নাথপুরের বাউধরণ গ্রাম পার্শবর্তী হাওরে গরু নিয়ে যাবার সময় বজ্রপাতে নিহত হন শিপন মিয়া (৩৩) নামের আরেক কৃষক। তিনি বাউধরণ গ্রামের মৃত তবারক মিয়ার ছেলে। বজ্রপাতে একটি গরুও নিহত হয়।

এ ছাড়া দিরাইয়ে ধান কাটতে হাওরে গিয়ে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন কৃষক তাপস মিয়া (৩৫)। তিনি হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার জলসুখা গ্রামের মফিজ উল্লার ছেলে। একই সময় দক্ষিণ সুনামগঞ্জের হাওরে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন কৃষক ফরিদ মিয়া (৩৫)। তিনি উত্তর গাজীনগরের আমিরুল ইসলামের ছেলে। এ সময় দুটি গরুও নিহত হয়।

শাল্লা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলামিন চৌধুরী জানান, বজ্রপাতের ঘটনায় শংকর সরকার শ্বাসখাই বাজারে যাবার পথেই নিহত হয়েছেন। এরপর তার স্বজনরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েছিলেন, ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

জগন্নাথপুর থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানান, বাউধরণ গ্রাম পার্শবর্তী হাওরে বজ্রপাতে এক কৃষক নিহত হওয়ার খবর স্থানীয় ইউপি সদস্য জানিয়েছেন তাকে।

দিরাই উপজেলার সরমঙ্গল ইউপি চেয়ারম্যান এহসান চৌধুরী জানান, কৃষক তাপস মিয়া ধান কাটতে জলসুখা থেকে সরমঙ্গলে এসেছেন। শনিবার সকালে তিনি অন্যদের সঙ্গে পাশের উদগল হাওরে ধান কাটতে গিয়েছিলেন। হাওরে ঝড়, শিলাবৃষ্টি ও বজ্রপাত শুরু হলে তাপস দৌড়ে সরমঙ্গল গ্রামে ফেরার চেষ্টা করেন। এসময় পথেই বজ্রপাতে তিনি নিহত হন।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি হারুনুর রশিদ চৌধুরী জানিয়েছেন, সকাল সাড়ে ১১টায় উপজেলার পাঁচগুছিয়া হাওরে বজ্রপাতের ঘটনায় ফরিদ মিয়া নামের ওই কৃষক নিহত হন। এসময় তার দুটি গরুও মারা গেছে।

Print Friendly, PDF & Email