লক্ষ্মীপুরে ইউপি সদস্য’র বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ

রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে এক ইউপি  সদস্য’র বিরুদ্ধে হতদরিদ্রের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী ১০ টাকা কেজির চাল আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। চাল বিতরনের সময় ট্যাগ অফিসার ও উপস্থিত থাকেন না বলে জানায় ভুক্তভোগীরা। সরকার প্রতিবছর মার্চ, এপ্রিল, কক্টোম্বর, নভেম্বর ও ডিসেম্বর ৫ মাস কার্ড ধারি হতদরিদ্রদের প্রতিমাসে ১০টাকা মূল্যে ৩০কেজি চাল ডলারের মাধ্যমে দিয়ে থাকেন। কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের পূর্ব শেখপুরা ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য লিঠন হতদরিদ্রদের কার্ড আটকে রেখে নিজে চাউল উত্তোলন করে অন্যত্র বিক্রি করে টাকা আত্মসাত করছেন বলে চাল না পাওয়া কার্ডধারী হতদরিদ্ররা জানায়।

সরেজমিনে গেলে জানা যায়, উপজেলার পূর্ব শেখপুরা হাজি বাড়ীর মনির হোসেনের নামে কার্ড থাকলেও গত এক বছরে একবারও চাল পাননি তিনি। একই বাড়ীর জাহানারা,সেফায়েত উল্ল্যা,শাহিনুর বেগম এবং খালেক মাষ্টার বাড়ীর আমির হোসেন, বাচ্চু, মনু মিয়া, আতাউজ্জামান ও অলি মুন্সি বাড়ির শেফালী বেগম, রাকিব,রোকেয়া সহ ১৫/২০ জন কার্ডধারী জানান তারাও গত এক বছরে কোন চাল পায়নি।

ডিলার ছিদ্দিক পাটোয়ারী বলেন, কার্ডধারীদের চাল দেওয়ার সময় কার্ড রেখে দেন তিনি। পরে স্থানীয় মেম্বার এসে কার্ডগুলো নিয়ে যায়।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য লিঠন বলেন, কার্ডধারীদের মধ্যে যারা কয়েকবার চাল পেয়েছে এবার তাদের না দিয়ে, কার্ড নেই এমন কয়েকজনকে দরিদ্রকে চাল দিয়েছি।

ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন বলেন, কার্ডধারীর চাল অন্যকে দেয়ার বিধান নেই। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন তিনি।

উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন বলেন, বিষয়টি তিনি জানেন। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ পেলে মেম্বার ও ডিলারের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেয়া হবে। তবে আগামীতে এমন হবে না বলে আশ্বাস দেন তিনি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনতাসীর জাহান বলেন, কার্ডধারীর চাল অন্যকে দেয়ার কোন বিধান নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email