করোনা টেস্টের কিট আবিষ্কার করেই সন্তান জন্ম দিলেন তিনি

সন্তান জন্মের সময় ঘনিয়ে আসছিল। সেই সঙ্গে খারাপ হচ্ছিল শরীর। কিন্তু তারপরও থেমে যাননি গবেষক মিনাল দাখাভে ভোঁসলে। দেশের জরুরি পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের কিট  নিয়ে এক নাগাড়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ব্যস্ত থেকেছেন।  ১৮ মার্চ চূড়ান্ত গবেষণা রিপোর্টসহ কিট জমা দেন মিনাল ও তার গবেষক দল। তারপরই হাসপাতালে ভর্তি হন মিনাল। পরের দিন জন্ম দেন কন্যাসন্তানের।

মিলান ও তার দলের তৈরি সেই কিট ন্যাশনাল ইন্সটিউট অব ভাইরোলজির (এনআইভি) গুণমানের মাপকাঠিতে সসম্মানে উত্তীর্ণ হয়েছে। এটি সম্পূর্ণ ভারতে তৈরি প্রথম কোন কিট যা শতভাগ নির্ভুল ফল পাওয়ার সাফল্য দেখিয়েছে।
ভারতীয় গণমাধ্যম প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মিনাল মহারাষ্ট্রের পুনের মাইল্যাব ডিসকভারির গবেষণা ও উন্নয়ন প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি একজন ভাইরোলজিস্ট, ভাইরাস নিয়েই তার কাজ । প্রথম ভারতীয় কোনো প্রতিষ্ঠান হিসেবে এরই মধ্যে ‘মাইল্যাব’ করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য কিট বানিয়ে বাজারজাত করার অনুমতি পেয়েছে। গত বৃহস্পতিবার তাদের তৈরি কিট বাজারে পৌঁছেও গেছে । প্রতিষ্ঠানটি প্রথমে  পুনে, মুম্বাই, দিল্লি, গোয়া ও বেঙ্গালুরুতে ১৫০টি কিট পাঠিয়েছে।

জানা গেছে,  এর আগে শরীর ক্রমেই খারাপ হওয়ায় ফেব্রুয়ারির শেষে হাসপাতালে একবার ভর্তি হয়েছিলেন অন্তঃসত্ত্বা মিনাল।  কয়েকদিন হাসপাতালে থেকে আবারও শুরু করেন গবেষণার কাজ।
সন্তান জন্মের পাশাপাশি এমন খবরে স্বভাবতই দারুণ উচ্ছ্বসিত মিলান।  তিনি বলেন, ‘এটি জরুরি অবস্থা ছিল, তাই আমি এটিকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে গ্রহণ করেছি। দেশের জন্য কিছু করতে হবে এটাই ভেবেছি।’
তিনি আরও বলেন, ’ ছয়-সাত ঘন্টা ধরে পরীক্ষার পরিবর্তে আমাদের এই কিট দিয়ে আড়াই ঘন্টার মধ্যে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা যাবে।’

মিলান ও তার দলের তৈরি কিটের বৈশিষ্ট্য হলো, বাইরে থেকে কিট এনে পরীক্ষার করলে যেখানে খরচ পড়বে ৪ হাজার ৫০০ টাকা, সেখানে তাদের তৈরি একটি কিট দিয়ে ১০০টি নমুনা পরীক্ষা করা যাবে। এতে খরচ পড়বে মাত্র ১২০০ টাকা।
শনিবার ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে নতুন করে ১৯৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা দাড়িয়েছে ৯০০ জনে। এতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৯ জন। সূত্র : এনডিটিভি, এই সময়

Print Friendly, PDF & Email