করোনায় আক্রান্ত বিশ্বনেতারা

বিশ্বে করোনা ভাইরাসের বিস্তার বেড়েই চলেছে। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত ব্যক্তি ও মৃতের সংখ্যা। এরই মধ্যে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বিভিন্ন দেশের সরকারের গুরুত্বপূর্ণ নেতারা। ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়তে থাকায় বিভিন্ন দেশের সরকারপ্রধানরা তাদের সভা-সমাবেশ সীমিত করেছেন। ঘরে বসেই দেশ চালাচ্ছেন তারা।

বিশ্বজুড়ে মহামারীর রূপ নেওয়া করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের শরীরে। যুক্তরাজ্যের স্থানীয় সময় গতকাল শুক্রবার সকালে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। তবে তার শরীরে ভাইরাসটির লক্ষণ মৃদু এবং বাড়িতে থেকে কাজ চালিয়ে যাবেন। করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেও জনসন সরকারের নেতৃত্ব দেওয়া অব্যাহত রাখবেন বলে জানিয়েছেন তার এক মুখপাত্র।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ডাউনিং স্ট্রিট থেকে বরিস জনসনের সংক্রমণের কথা নিশ্চিত করার কিছুক্ষণের মধ্যে তিনি নিজেই এক টুইট বার্তা প্রকাশ করেন। এতে ৫৬ বছর বয়সী জনসন জানান, গত ২৪ ঘণ্টা ধরে তার জ্বর রয়েছে এবং অনবরত কাশি হচ্ছে। প্রধান চিকিৎসা কর্মকর্তার পরামর্শে করোনা ভাইরাসের পরীক্ষা করান তিনি। আর এতে তার সংক্রমণ ধরা পড়ে। নিজ বাড়িতে বিচ্ছিন্ন থেকে কাজ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর তার মন্ত্রিসভার আরেক সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক গতকাল এক টুইট বার্তায় তার করোনা পজিটিভ হওয়ার খবর জানিয়েছেন। আক্রান্ত হওয়ার খবর নিশ্চিত হওয়ার পর তিনি স্বেচ্ছা আইসোলেশনে আছেন বলে জানিয়েছেন। তবে তার দেহে করোনার উপসর্গ তেমন গুরুতর নয়।

যুক্তরাজ্যে করোনা ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ১১ হাজার ৬৫৮ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫৭৮ জন। আর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৩৫ জন। এ ছাড়া ব্রিটিশ রাজপরিবারেও ইতোমধ্যে হানা দিয়েছে করোনা ভাইরাস। গত বুধবার রাজপরিবার এক বিবৃতিতে জানায়, ব্রিটিশ সিংহাসনের উত্তরাধিকারী প্রিন্স চার্লস এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এ ছাড়া করোনায় হাঙ্গেরিতে নিযুক্ত ডেপুটি ব্রিটিশ অ্যাম্বাসেডরের মৃত্যু হয়েছে।

বিশ্বনেতাদের মধ্যে এর আগে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর স্ত্রী সোফিয়া করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কোয়ারেন্টাইনে আছেন ট্রুডো। স্পেনের উপপ্রধানমন্ত্রী কারমেন ক্যালভোর শরীরেও করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়েছে। তাকে আইসোলেশনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

মালয়েশিয়ার রাজপ্রাসাদের সাতজন কর্মী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর দেশটির রাজা এবং রানি কোয়ারেন্টাইনে গেছেন। দেশটির রাজা সুলতান আব্দুল্লাহ সুলতান আহমদ শাহ এবং তার স্ত্রী রানি টুঙ্কু আজিজাহ আমিনাহ মাইমুনাহ ইস্কান্দারিয়াহর করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ এলেও সতর্কতা হিসেবে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসে বিশেষভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ইরান সরকার। ইরানের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনির বর্তমান উপদেষ্টা ড. আলি আকবর বেলাইয়াতি আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি নিজ বাড়িতে স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টাইনে আছেন। সম্প্রতি খামেনির এক সাবেক উপদেষ্টা করোনায় মারা গেছেন। এ মাসের শুরুতে ইরানের ২৯০ সদস্যের পার্লামেন্টের ২৩ জন সংক্রমিত হন। দুই এমপি এখন পর্যন্ত মারা গেছেন। কয়েকজন ভাইস প্রেসিডেন্ট আক্রান্ত হয়েছেন। ফ্রান্সে কয়েকজন এমপি ও মন্ত্রী আক্রান্ত হয়েছেন।

গোটা বিশ্ব এখন করোনা ভাইরাসের আক্রমণে কাঁপছে। পরিসংখ্যান-বিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের ১৯৯টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। আক্রান্তের সংখ্যা পাঁচ লাখেরও বেশি।

গতকাল সকাল ৯টা পর্যন্ত পাওয়া তথ্যমতে, সারা বিশ্বে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৩২ হাজার ১৫০ জনে। মৃত্যু হয়েছে ২৪ হাজার ৮৩ জনের। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লাখ ২৪ হাজার ৩২৬ জন।  সারা বিশ্বে আক্রান্ত অবস্থায় আছেন ৩ লাখ ৮৩ হাজার ৭৪১ জন, যাদের মধ্যে ১৯ হাজার ৩৫৭ জনের অবস্থা গুরুতর। বাকি ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৩৮৪ জনের অবস্থা স্থিতিশীল। এ পর্যন্ত করোনায় ১৬ শতাংশ মানুষের মৃত্যু ঘটেছে, সুস্থ হয়েছে ৮৪ শতাংশ মানুষ। করোনায় প্রাণহানিতে চীনকে ছাড়িয়ে গেছে ইতালি ও স্পেন। ইতালির পরই রয়েছে স্পেন। দেশটিতে এক দিনে করোনায় রেকর্ড আরও ৭৬৯ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে স্পেনে করোনায় মোট প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৫৮ জনে।

চীনের উহান থেকে বিস্তার শুরু করে গত আড়াই মাসে বিশ্বের ২০০টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯)। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারী রূপ নিয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email