নিষেধাজ্ঞার মধ্যেই ইউরোপ থেকে যাত্রীবাহী বিমান ঢাকায়

নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ইউরোপে বিভিন্ন দেশ থেকে ৯৫ যাত্রীকে নিয়ে কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইটটি ঢাকায় পৌঁছেছে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এড়াতে যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের দেশগুলো থেকে বাংলাদেশে বিমান প্রবেশে সরকার নিষেধাজ্ঞা দিলেও ৯৫ জন যাত্রী নিয়ে কাতার এয়ারওয়েজের একটি বিমান ঢাকায় পৌঁছেছে। সোমবার (১৬ই মার্চ) সন্ধ্যায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাতার এয়ারওয়েজের বিমানটি অবতরণ করে।

ইউরোপ থেকে এসব যাত্রীদের মধ্যে ইতালির ৬৮ জন এবং জার্মানির ২৭ জন দেশে ফিরেছেন। বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর এসব যাত্রীদের রাজধানীর আশকোনার হজ ক্যাম্পে পাঠানো হয়েছে। সেখানেই তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি আছে কি না তা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। এরপর, তারা ১৪ দিনের পর্যবেক্ষণে থাকবেন।

কাতার এয়ারওয়েজের কিউআর-৬৩৪ ফ্লাইটটি ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাড়ে ৪টার দিকে অবতরণের কথা থাকলেও অনুমতি মিলতে দেরি হওয়ায় পোনে ৭টার দিকে অবতরণ করে।

ইউরোপ থেকে দেশে ফেরত আসা যাত্রীদের বিষয়ে গেল শনিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জানান, সংক্রমণ এড়াতে যে আসুক না কে তাকে ফেরত পাঠানো (পুশব্যাক) হবে।

গতকাল রবিবার বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ সংবাদ সম্মেলনে জানায়, সোমবার (১৬ই মার্চ) দুপুর ১২টা থেকে ৩১শে মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের কোনো দেশ থেকে যাত্রী আনতে পারবে না কোনও এয়ারলাইন্স। যদি কোনো এয়ারলাইন্স তারপরও যাত্রী নিয়ে আসে তবে তাদের খরচেই ফেরত পাঠানো হবে।

এ ঘোষণার পরদিনই ইউরোপ থেকে যাত্রীবাহী বিমান ঢাকায় অবতরণ করলো।

ইউরোপ থেকে এসব যাত্রীদের ফেরত পাঠানো হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের আসার ব্যাপারে অনুমতি দিয়েছে। শেষবারের মতো তাদের অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে, ইউরোপ থেকে যাত্রী আনায় সিভিল এভিয়েশন থেকে কাতার এয়ারওয়েজের কাছে অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে। এমনকি সিভিল এভিয়েশন থেকে এয়ারলাইন্সটির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অসন্তোষপত্র পাঠানো হবে বলেও জানান বেবিচক চেয়ারম্যান।

Print Friendly, PDF & Email