জনগণকে ঝুঁকিমুক্ত রেখেই মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান

করোনাভাইরাসের কারণে জনগণ যাতে ঝুঁকিতে না পড়ে সেভাবেই মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান করার কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মুজিববর্ষ বিষয়ে গতকালই সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, এমনভাবে মুজিববর্ষ উদযাপন করা হবে যেন জনগণ ঝুঁকিতে না পড়ে। জনস্বাস্থ্য বিবেচনায় মুজিববর্ষের অনুষ্ঠান সংক্ষিপ্ত করা হয়েছে। সোমবার (৯ই মার্চ) সন্ধ্যায় গণভবনে আওয়ামী লীগের ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠকে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘অনুষ্ঠান পুনর্বিন্যাস করা হয়েছে। তবে, দুই থেকে তিন সপ্তাহ পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তীতে বড় পরিসরে মুজিববর্ষ পালন করা হবে।’

মুজিববর্ষে আমন্ত্রিত অতিথিদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান, ‘বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস ঝুঁকির কারণে আমন্ত্রিত অনেক অতিথি মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে আসতে পারছেন না।’ এছাড়া, করোনাভাইরাস আক্রান্ত দেশগুলোতে ভিসা দেয়া বন্ধ করা হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা।আর দেশে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাজধানীতে একটি পুরো হাসপাতাল এবং প্রতি জেলার হাসপাতালগুলোতে করোনা ইউনিট করা হয়েছে। দেশের প্রতিটি জেলায় পর্যাপ্ত সতর্ক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এমনকি সতর্কতা হিসেবে ২৬শে মার্চে শিশুদের অনুষ্ঠান স্থগিত করা হয়েছে।’সর্দি-কাশি না থাকলে মাস্ক প্রয়োজন নেই বলেও মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী। এ সময় দেশবাসীকে করোনা নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে নিয়ম মেনে চলার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকার প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা নিয়েছে বলেও জানান তিনি।

Print Friendly, PDF & Email