করোনা প্রতিরোধে আইইডিসিআরের কিছু পরামর্শ

চীন থেকে ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মারা গেছে ৩ হাজার ৮২৮ জন। শুধু চীনেই মৃতের সংখ্যা ৩ হাজার ১১৯ জন। চীনের বাইরে বাংলাদেশসহ আরও ১০৭ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এ ভাইরাস। এসব দেশে মারা গেছে আরও ৭০৯ জন।

১০০টিরও বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়া এই করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী মিলেছে বাংলাদেশে। দেশে প্রথমবারের মতো তিনজনের শরীরে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়েছে। রোববার বিকালে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)।

আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে দুজন পুরুষ ও একজন নারী রয়েছে। তাদের কোয়ারেন্টাইনে ভর্তি করা হয়েছে। তবে করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। এই রোগ প্রতিরোধে সচেতনতাই হচ্ছে অন্যতম হাতিয়ার। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে আইইডিসিআর ৬টি বিষয়ের ওপর জোর দিয়েছে।

১. হাঁচি-কাশি রয়েছে এমন ব্যক্তির সংস্পর্শ এড়িয়ে চলুন।

২. কোলাকুলি/করমর্দন করবেন না।

৩. নিয়মিত সাবান ও পানি দিয়ে দুই হাত ধোয়া। হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েও দুই হাত পরিষ্কার করা যেতে পারে।

৪. অপরিষ্কার হাতে চোখ, নাক ও মুখ স্পর্শ করবেন না।

৫. হাঁচি-কাশির সময় বাহু/টিস্যু/কাপড় দিয়ে নাক-মুখ ঢেকে রাখুন। ব্যবহৃত টিস্যু নির্দিষ্ট স্থানে ফেলুন। ব্যবহৃত কাপড় অন্তত ২০ মিনিট সাবান পানিতে রেখে পরিষ্কার করতে হবে।

৬. জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত আক্রান্ত দেশে ভ্রমণ থেকে বিরত থাকুন।

Print Friendly, PDF & Email