বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে লক্ষ্মীপুর টিটিসির অধ্যক্ষের এ কেমন শ্রদ্ধা!

নিজস্ব প্রতিবেদক :

ঐতিহাসিক ৭মার্চ উপলক্ষে লক্ষ্মীপুরে জাতির জনক ‘বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে পুষ্পর্ঘ অর্পনের নামে অবমাননার অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. মাহাবুবুর রশিদ তালুকদারের বিরুদ্ধে। তিনি লক্ষ্মীপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি)র অধ্যক্ষ। শনিবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে টিটিসিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে প্রতিকৃতিতে পুষ্পর্ঘ অর্পন করা হয়। এসময় অধ্যক্ষ নিজেই জুতা পায়ে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির বেদীতে উঠে ফুল দেন। এতে জাতির জনকের প্রতি অবমাননা করা হয়েছে। এনিয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

তারা জানান, ১৯৭১ সালের আজকের এদিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ডাকে স্বাধীনতার সংগ্রাম ও মুক্তিযোদ্ধের জন্য ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে ঐক্য হয়েছিলো বাঙালী জাতি। আজ সেই জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে জুতা পায়ে নিয়ে অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. মাহাবুবুর রশিদ তালুকদার নিজেই বেদীতে উঠে পড়েছেন। এটা জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধার নামে অবমাননা করা হয়েছে বলে তারা মনে করেন।

এ ব্যাপরে লক্ষ্মীপুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মাজহারুল আনোয়ার টিপু বলেন, একজন জাতির জনকে প্রতি সম্মান জানাতে হলে খালি পায়ে বেদীতে উঠতে হয়। কিন্তু জুতা পায়ে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পূষ্পর্ঘ অর্পন করার বিষয়টি অনৈতিক। এটা বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নয় অবমাননা করা হয়েছে। এসব বিষয়ে সবাইকে সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

লক্ষ্মীপুর সরকারী বিশ্ব বিদ্যালয় কলেজের সদ্য বিদায়ী অধ্যক্ষ মাঈন উদ্দিন পাঠান এর অভিমত বিষয়টি নিয়ে সবার সচেতনতা প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে টিটিসির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী মো. মাহাবুবুর রশিদ তালুকদার’র সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জুতা পায়ের বিষয়ে কোন কথা না বলে লাইন কেটে দেন।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালের এই দিনে ঐতিহাসিক রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) স্বাধীনতার সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ডাক দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ওই দিন তাঁর ডাকে এক উত্তাল জনসমুদ্রে পরিণত হয় ময়দান। এরপর ২০১৭ সালে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণ বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। বাঙালি জাতির স্বাধীনতার সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা অবিস্মরণীয় গৌরবময় এ দিনটি।

Print Friendly, PDF & Email