লক্ষ্মীপুরে বিচারপ্রার্থীদের দোরগোড়ায় একজন বিচারকের ছুটে চলা

রাকিব হোসেন আপ্র : এক সময় বিচারপ্রার্থী মানুষেরা বিচারকের নাগাল না পেলেও বর্তমানে তারা সরাসরি বিচারকের কাছে নিজেদের অভিযোগ ও সমস্যার কথা তুলে ধরতে পারছেন খুব সহজেই। কারণ বিচারিক সেবা নিয়ে মানুষের দোরগোড়ায় হাজির হচ্ছেন বিচারক নিজেই।

লক্ষ্মীপুরে ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ কার্যক্রমের মাধ্যমে ব্যতিক্রমী এ প্রয়াস চালাচ্ছেন জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা ও সিনিয়র সহকারী জজ মুহম্মদ ফাহদ বিন-আমিন চৌধুরী।

জানা গেছে, আইনগত সহায়তা বা লিগ্যাল এইডের এ কার্যক্রমের মাধ্যমে অসহায় বিচারপ্রার্থীরা উপকৃত হচ্ছেন। প্রান্তিক মানুষগুলো বিভিন্ন আইনী সেবা সম্পর্কে জানতে পারছেন। এতে ব্যক্তি সচেতনতার পাশাপাশি বাড়ছে সামাজিক সচেতনতাও।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার কর্মপরিকল্পনার আলোকে সারাদেশের লিগ্যাল এইড অফিসগুলো ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সম্প্রতি জেলা লিগ্যাল এইড অফিসের উদ্যোগে এবং এইড কুমিল্লা ও ইউএসএআইডি বাংলাদেশ-এর সহযোগিতায় লক্ষ্মীপুরের একাধিক ইউনিয়নে ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের স্বতস্ফুর্ত উপস্থিতি দেখা যায়।

এ অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী বিচারপ্রার্থীরা সরাসরি বিচারকের কাছে নিজেদের মামলা-বিবাদ, আইনি সমস্যা ও বিভিন্ন প্রশ্ন তুলে ধরেন। পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা ও সিনিয়র সহকারী জজ মুহম্মদ ফাহদ বিন-আমিন চৌধুরী বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব এবং আইনি সমস্যার তাৎক্ষণিক প্রতিকার ও পরামর্শ দেন। এছাড়াও তিনি গণশুনানীতে লিগ্যাল এইড সেবা নিয়ে যেকোনো অভিযোগ ও পরামর্শ থাকলে তা জানানোর আহ্বান জানান।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দালালবাজার ফাতেমা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে জেলা লিগ্যাল এইড অফিসের ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ কার্যক্রম।

গত ৩০ জানুয়ারি সদর উপজেলার দালাল বাজার ফাতেমা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়োজিত ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ অনুষ্ঠানে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান সোহেল, বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক নুরুন্নবী ও অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থী সহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ২৮ জানুয়ারি রামগঞ্জ উপজেলার ভাদুর ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেন ভূঁইয়া। এভাবেই সরকারের লিগ্যাল এইডের সেবা অসহায় বিচারপ্রার্থীদের দোরগোড়ায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

দালাল বাজার এলাকার বাসিন্দা কোহিনূর জানান, লিগ্যাল এইড অফিসের গণশুনানী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি আইনি সমস্যা সরকারি খরচে সমাধানের জন্য আবেদন ফর্ম পূরণ করতে পেরেছেন, এজন্য তাকে জেলা জজ আদালত বা লিগ্যাল এইড অফিসে যেতে হয়নি।

দালাল বাজার ফাতেমা বেগম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জানায়, গণশুনানী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তারা আইন বিষয়ে সরাসরি বিচারকের কাছ থেকে অনেক কিছু জানতে পেরেছেন এবং বাল্য বিবাহ-যৌতুকের কুফল সম্পর্কে অবগত হয়েছেন।

রামগঞ্জের ভাদুর ইউনিয়নের বাসিন্দা মনোয়ারা বেগম বলেন, সরকারের এই মহতী কার্যক্রম সম্পর্কে জানতে পেরে খুবই ভালো লাগছে। বিষয়টি আমার স্বজন ও প্রতিবেশীদের অবশ্যই জানাবো।

জেলা লিগ্যাল এইড কর্মকর্তা ও সিনিয়র সহকারী জজ মুহম্মদ ফাহদ বিন-আমিন চৌধুরী বলেন, সরকারি খরচে আইনি সেবার তথ্য ছড়িয়ে দিতে এবং লিগ্যাল এইড সেবা সম্পর্কে সচেতনতা ও জবাবদিহিতা সৃষ্টি করতে এ ধরণের গণশুনানী অত্যন্ত কার্যকর। এটি লিগ্যাল এইডের সেবা ও বিচারপ্রার্থী মানুষের মধ্যে সেতুবন্ধন তৈরি করছে। এ ধরণের কার্যক্রমে গণমানুষের অংশগ্রহণ ও আস্থা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

পর্যায়ক্রমে লক্ষ্মীপুরের সকল ইউনিয়নে ‘প্রাতিষ্ঠানিক গণশুনানী’ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

 

শীর্ষ সংবাদ/আপ্র

Print Friendly, PDF & Email