লক্ষ্মীপুরে দুই দিনে ৩ ছিনতাই, জনমনে আতঙ্ক

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে গত ২দিনে পুলিশ পরিচয় দিয়ে ও নেশায় অজ্ঞান করে ৩টি ছিনতাই ঘটনা ঘটে। এ সময় ছিনতাইকারীরা নগদ ২৫হাজার টাকা ও ৩ভরি স্বর্নালঙ্কার লুট করে নিয়ে যায়। এ নিয়ে সাধারন মানুষের মাঝে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। ঘটনা ঘটে বৃহস্পতিবার রাতে চন্ডিপুর ইউনিয়নের পূর্ব চন্ডিপুর তালিমুল কোরান মাদ্রাসার পাশে, একই ইউনিয়নের কালুপুর বাজারের পাশে ও বুধবার বিকেলে রামগঞ্জ শহরের ভাইপাস ব্রীজ সংলগ্ন গল্লীতে। এলাকাবাসী ৫জন চিনতাই কারী দরে থানা পুলিশের কাছে সর্পদ করে।

জানা যায়, বুধবার ৩টার সময় উপজেলার নোয়াগাও ইউনিয়নের নোয়াগাও মিজি বাড়ি প্রকাশ গাইনের বাড়ির এরশাদ হোসেনর স্ত্রী ও তার বোন সিএনজি যোগে রামগঞ্জে আসার পথে সিএনজি থাকা একটি লোক নেশা দিয়ে অজ্ঞান করে ভাইপাস গল্লিতে নিয়ে আসে , পরে তিন জন তাদের সাথে থাকা নগদ ১৫ হাজার টাকা, নাক,কান, গলার ৩ভরি স্বর্নালঙ্কার নিয়ে যায়। ঘটনাটি স্থানীয় শরিফ হোসেন সহ কয়েকজন বুজতে পেরে চিৎকার দিয়ে ২জন ছিনতাই কারী ধরে পুলিশের হাতে সর্পদ করে।

বৃহস্পতিবার রাতে পূর্ব চন্ডিপুর এলাহী বক্স বাড়ির শ্রমিক শাহাদাৎ হোসেন ও রাশেল রামগঞ্জ বাজার থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে তাদের সাথে থাকা ১০ হাজার টাকা চিনিয়ে নিয়ে যায়। একই রাতে একই ইউনিয়নের কালুবাজার এলাকার ওয়ার্কশপ শ্রমিক হাজীপুর গ্রামের সুয়াগাজী বাড়ির তামজিদ ও হাজীবাড়ি রাকিব হোসেন নামের দুইজনকে পুলিশ পরিচয় দিয়ে আটক করে , তাদের কিছু না পেয়ে মারধর করে চলে যাওয়ার সময় ,৭নং ওয়ার্ড গ্রাম পুলিশ মোস্তফা চিৎকার দিলে গ্রামবাসীসহ তিনজনকে আটক করে পুলিশের কাছে সর্পদ করে। এ সময় দুইজন পালিয়ে যায়।পুলিশ পরিচয় চিনতাই কারীরা হল ফতেহপুর গ্রামের মৃত আবুল হাশেমের ছেলে মোঃ আবদুল হক, একই গ্রামের মৃত রুহুল আমিনের ছেলে আরিফ হোসেন ও খোরশেদ আলমের ছেলে মোঃ সৌরভ। নেশা দিয়ে অজ্ঞানকারী চিনতাই কারী দুই জনের বাড়ি ঢাকার রুপগঞ্জে।

রামগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী ফারুক হোসেন, শিক্ষক আনোয়ার হোসেন, চাকরিজীবি জহিরুল ইসলামসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার একাধিক ব্যক্তি জানান, হঠাৎ রামগঞ্জে ছিনতাই ঘটনা বেড়ে যায়। মহিলাসহ মানুষ চলাফেরায় আতংক বোধ করছে।
রামগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন জানান, ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনেমামলা করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email