১৫ মিনিটে পারিশ্রমিক ৩ কোটি রুপি

বলিউড অভিনেত্রী টাবু। ২০০৮ সালে সর্বশেষ তেলেগু সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি। এরপর প্রায় এক যুগ কেটে যাওয়ার পর আবারো সামনে এলেন তিনি। তেলেগু ভাষার ‘আলা বৈকুণ্ঠপুরামলো’ সিনেমায় অভিনয় করেছেন দর্শকপ্রিয় এ অভিনেত্রী। গত ১২ জানুয়ারি মুক্তি পেয়েছে ছবিটি। ত্রিবিক্রিম শ্রীনিবাস পরিচালিত সিনেমাটি বক্স অফিসে দারুণ সাড়া ফেলেছে।

তবে ‘আলা বৈকুণ্ঠপুরামলো’ সিনেমায় সব মিলিয়ে মাত্র ১৫ মিনিটের জন্য নিজের চেহারা দেখিয়েছেন টাবু। আর এজন্য ৩ কোটি রুপি পারিশ্রমিক নিয়েছেন বলে খবর প্রকাশ করেছে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়, সিনেমাটিতে নিজেকে ১৫ মিনিটের জন্য মেলে ধরায় টাবু ৩ কোটি রুপি নিয়েছেন। এর আগে মহেশ বাবু অভিনীত ‘সারিলের নিকেভভারু’ সিনেমায় কাজের জন্য একই পরিমাণ পারিশ্রমিক নিয়েছিলেন টাবু।

অ্যাকশন ঘরানার ‘আলা বৈকুণ্ঠপুরামলো’ সিনেমায় আল্লু অর্জুনের বিপরীতে অভিনয় করেছেন পূজা হেগড়ে। এছাড়া অভিনয় করেছেন জয়রাম, রাজেন্দ্র প্রসাদ, নীবিথা পিথুরাজ, সুনীল, মুরালি শর্মা, রাও রমেশ প্রমুখ। এটি প্রযোজনা করেছেন আল্লু অরবিন্দ ও রাধা কৃষ্ণা।

ছোটবেলায় আকাশে ওড়ার স্বাদ ছিল টাবুর। অর্থাৎ বিমানবালা হওয়ার ইচ্ছে ছিল তার। কিন্তু তা পূরণ হয়নি, হয়েছেন অভিনেত্রী। টাবু বলেন, ‘ছোটবেলায় অভিনয়ে আসার ইচ্ছা ছিল না। প্রথমে আমি এয়ার হোস্টেস হতে চেয়েছিলাম। ভালো হাইটের জন্য সুযোগও পেয়েছিলাম। কিন্তু হুট করেই অভিনয়ে চলে এলাম। যখন আমি প্রথম অভিনয় জগতে আসি, তখন এই জায়গাটা সম্পর্কে কোনো জ্ঞানই ছিল না। ছবি করার সুযোগটাও এসেছিল হঠাৎ করে। তবে বাবা-মায়ের শর্ত ছিল, একটা ছবিতে অভিনয় করার পর পড়াশোনাটা শেষ করতে হবে।’

অভিনয় করা ছবিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে কঠিন চরিত্র কোনটা? এমন এক প্রশ্নের জবাবে টাবু বলেন, ‘আমার অভিনীত কোনো চরিত্রই সহজ নয়। সৃষ্টিকর্তা আমাকে সহজে পাওয়া যায় বা করা যায়, এমন কিছু দেননি। হয়তো আমি আমার পথটাও সেভাবেই বেছে নিয়েছি। তাই সব সময় চেষ্টা করেছি নতুন নতুন চরিত্রে অভিনয় করার। আর যদি সেটা না পেয়ে থাকি, তাহলে ছবিতে ইন্টারেস্টিং অন্য কিছু খুঁজি। সেটা পেলে, তবেই এগোই।’

কখনো নির্দেশনা বা প্রযোজনায় আসার ইচ্ছে আছে কি না জানতে চাইলে টাবু বলেন, ‘একদমই না। কোনো ইচ্ছে নেই। শুধু ফিল্ম কেন, যে কোনো বিষয়েই আমাকে কনভিন্স করা খুব কঠিন। এখন যেখানে আছি, খুব খুশি আমি। নিজের পছন্দের লোকদের সঙ্গে কাজ করতে ভালোবাসি। অভিনয় আমার জীবনের একটা ছোট অংশ। এটা ছাড়াও আমার জীবনে করার মতো অনেক কিছু রয়েছে।’

১৯৮৫ সালে ‘হাম নওজয়ান’ ছবিতে শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন টাবু। নায়িকা হিসেবে প্রথম অভিনয় করেন ১৯৯১ সালে তেলেগু ভাষায় নির্মিত ‘কুলি নম্বর ওয়ান’ ছবিতে। তিনি মূলত হিন্দি ছবিতে কাজ করেন। তবে অসংখ্য তেলেগু, তামিল, মালয়ালাম, মারাঠি এবং বাংলা ছায়াছবিতেও কাজ করেছেন। অভিনয় করেছেন হলিউডের ছবিতেও। শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে দুবার ‘জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার’ জিতেছেন টাবু। এছাড়া সেরা নারী অভিনেত্রী হিসেবে চার বার জিতেছেন ফিল্মফেয়ার পুরস্কারও।

এখন তার বয়স ৪৮ বছর। টাবু সোশ্যাল মিডিয়া বিশেষ করে ইনস্টাগ্রামে খুব অ্যাক্টিভ। সেখানে তিনি তার নতুন নতুন নতুন ছবি পোস্ট করেন। সেগুলো দেখলে বোঝা যায়, সৌন্দর্য ও শরীরকে ধরে রেখেছেন তিনি আকর্ষণীয় করে। মনের সৌন্দর্যও তার প্রকাশ পায় জীবনের উচ্ছ্বাসে। তাই চোখ ফেরানো যায় না এখনো টাবুর থেকে। চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে পারেন তিনি আজকালের অনেক সুন্দরী নায়িকাকে।

সম্প্রতি একটি টিভি শোতে বলিউড অভিনেতা অজয় দেবগন জানান, ‘টাবুর বিয়ে হয়নি আমার জন্য। ও বিয়ে করতে চাইলেই আমি না করে দিতাম।’ অজয় ও টাবু কলেজ থেকেই বেস্ট ফ্রেন্ড। আবার পর্দাতেও তারা ছিলেন বেস্ট জুটি। তাদের প্রেম নিয়েও গুঞ্জনের কমতি ছিল না নব্বই দশকে। তবে কী সত্যিই অজয়ের জন্য টাবু বিয়ে করেননি? এর সিরিয়াস উত্তরটা জানা যায়নি। হয়তো জানা যাবেও না কোনোদিন। নির্মাতা নিতিন কাক্কারের পারিবারিক কমেডি গল্পের নতুন হিন্দি সিনেমা ‘জাওয়ানি জানেমান’তে অভিনয়ের জন্য সম্মতি দিয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী টাবু। এই সিনেমার মধ্য দিয়ে ২০ বছর পর সাইফ আলী খানের সঙ্গে আবারো একসঙ্গে কাজ করতে যাচ্ছেন তিনি।

১৯৯৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত দর্শকনন্দিত সিনেমা ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’ এবং ‘বিবি নাম্বার ওয়ান’-এ শেষবার সাইফ-টাবুকে একসঙ্গে দেখা যায়। এবার দুই দশক পর ফের একই সিনেমায় অভিনয় করবেন তারা।

Print Friendly, PDF & Email