বিএনপি ভোট থেকে সরে দাঁড়ানোর পথ খুঁজছে

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপির সিটি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অজুহাত খুঁজছে।  বিএনপি ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অজুহাত খুঁজছে। নির্বাচন নিয়ে বিএনপি যেসব অভিযোগ করছে, তার বিন্দুমাত্র সত্যতা নেই।  শনিবার (২৫ জানুয়ারি) রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বিএনপি আসলেই একটি নালিশনির্ভর দল। বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে বিএনপির মত অমন ব্যর্থ রাজনৈতিক দল আর আসেনি। দলটি আন্দোলনে যেমন ব্যর্থ হয়েছে, নির্বাচনেও তেমনিভাবে ব্যর্থ। ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে নিশ্চিত পরাজয় দেখে বিএনপি নেতারা এখন নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার অজুহাত খুঁজছেন।

সিটি নির্বাচনে সবার জন্য সমতল (লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড ) ভূমি নেই বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের বিএনপির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক  বলেন, বিএনপির অভিযোগ হাওয়ার ওপরে। এর সঙ্গে বাস্তবতার কোনো মিল নেই। পারলে তারা অভিযোগের স্বপক্ষে প্রমাণ নিয়ে আসুক। মনগড়া কথা না বলে তথ্য-প্রমাণ নিয়ে জাতির সামনে তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি।

কাদের আরো বলেন, মনগড়া কথা বললে তো হবে না। তারা সবসময় অন্ধকারে ঢিল ছুঁড়ে। বিএনপির সব নেতাই নির্বাচনী প্রচারে কাজ করে চলেছেন। আমরা তো নির্বাচন কমিশনের আইনের কারণে প্রচারে নামতেই পারছি না।

তিনি বিএনপি নেতাদের প্রতি পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘কোথায় লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই? আমাদের দলের প্রার্থী বা নেতারা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন, এমন একটি উদাহরণ দেখান?’

এ ছাড়া সিটি নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে দাবি কেরে তিনি বলেন, আমাদের সময়ে সব নির্বাচনই অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত হয়েছে। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনও গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ হবে। ইভিএম নিয়ে বিরোধী দলের বিরোধিতা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি অ্যানালগ বলেই ডিজিটাল পদ্ধতিতে আস্থা রাখতে পারছে না। আমরা চাই দেশকে এগিয়ে নিতে। আর বিএনপি চায় পেছনের দিকে নিতে। বিশ্বব্যাপী ভোটের জন্য স্বচ্ছ ও আধুনিক পদ্ধতি হিসেবে ইভিএম গ্রহণযোগ্যতা পাচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email