আসলে এরা ধর্ষকের পক্ষই নিয়েছে…

ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর খোয়া যাওয়া মুঠোফোন ও অন্যান্য সামগ্রীর সূত্র ধরে ধর্ষক মজনুকে আটক করা হয়েছে। মজনু মুঠোফোনটি অরুণা নামের একটি মেয়ের কাছে বিক্রি করেন। অরুণা আবার বিক্রি করেন খায়রুল হক নামের এক ব্যক্তির কাছে। গতকাল অরুণা ও খায়রুলকে গ্রেফতারের পর র‌্যাব নিশ্চিত হয়-আসল অপরাধী মজনু।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এটাও নিশ্চিত করেছে যে, বোনটি নিজেও ধর্ষককে চিহ্নিত করেছে।

এরপর কিছু সুশীলমনা লোকজন বলছে এটা সাজানো নাটক। আসল ধর্ষক না। সরকারের আইওয়াশ। সরকার আরেকটি জর্জ মিয়া নাটক সাজিয়েছে।

যারা রাতদিন পরিশ্রম করে ধর্ষককে ধরলো, যিনি ভিকটিম তিনি চিহ্নিত করলেন- এরপর আপনি ঘরে বসে কি করে বলেন যে, এই লোক ধর্ষণকারী না। আপনাদের জন্য সমবেদনা আর রামছাগল উপাধি দেয়া ছাড়া উপায় নাই।

এই বিশেষ শ্রেণিভুক্ত মানুষগুলো তাদের মেধা ব্যবহার করে ধরেই নিয়েছে ‘অবশ্যই ধর্ষককে হতে হবে আহমদ শরীফ, রাজীব, মিজু আহমেদ কিংবা মিশা সওদাগরের মতো তাগড়া টাইপ।’

লেখক : আশরাফুল আলম খোকন

(ফেসবুক থেকে সংগৃহীত)

Print Friendly, PDF & Email