দেশের কোথাও বাঁশের সাঁকো থাকবে না : পরিকল্পনামন্ত্রী

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, দেশের কোথাও এখন আর বাঁশের সাঁকো থাকবে না। দেশের কোথায় কোথায় বাঁশের সাঁকো আছে বা সেতুর অভাবে মানুষকে কষ্ট পেতে হচ্ছে তা খুঁজে বের করে সেতু নির্মাণ করা হবে। যে দেশে পদ্মা নদীর উপরে একাধিক সেতু নির্মাণ হচ্ছে, কর্ণফুলী নদীর তলদেশ দিয়ে ট্যানেল নির্মিত হচ্ছে সেই দেশে সেতুর অভাবে মানুষ কষ্ট করতে পারে না।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে শিবগঞ্জ সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত এক সমাবেশে এই কথা বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন শিবগঞ্জ পৌর মেয়র তৌহিদুর রহমান মানিক।

বগুড়ার শিবগঞ্জ পৌরসভায় ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় সাড়ে ছয় কোটি টাকা ব্যয়ে ৭২ মিটার দৈর্ঘ্য ও চার মিটার প্রস্থের এক সেতু নির্মাণের ভিত্তি স্থাপন উপলক্ষে অয়োজিত সুধী সমাবেশে মন্ত্রী বলেন, জনগণের উপকারে আসে এমন প্রকল্প তার দপ্তরে আসলেই তা অনুমোদন করা হবে। তিনি বগুড়ায় একটি বিমানবন্দর স্থাপন এবং করতোয়া নদী খননসহ উন্নয়ন প্রকল্পের বিষয়ে বিশেষ নজর দেওয়ার আশ্বাস দেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন স্থানীয় সাংসদ শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ, বগুড়া জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান মজনু, সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপু, বেসরকারি সংস্থা টিএমএসএস’র নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপিকা হোসনে আরা বেগম, বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. রেজাউল আলম জুয়েল, শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমান মোস্তা প্রমুখ।

বহুল কাঙ্ক্ষিত একটি সেতু বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার অর্জুরপুরে করতোয়া নদীর উপরে নির্মিত হচ্ছে। আশপাশের ২০ গ্রামের লক্ষাধিক মানুষ সেতুটি নির্মাণের জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছিল। কারণ শিবগঞ্জ উপজেলা সদর থেকে মাত্র দেড় কিলোমিটার দূরে পৌর এলাকার অজুর্নপুর মহল্লা। সেই মহল্লার বাসিন্দাদের বিভিন্ন কাজে উপজেলা সদরে আসতে ঘুরতে হয় চার কিলোমিটার। এজন্য তারা করতোয়া নদীর উপর একটি সেতু নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। আর আজ ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হলো সেই সেতুর।

Print Friendly, PDF & Email