লক্ষ্মীপুরে চলন্ত পিকআপ খাদে পড়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরে চলন্ত একটি পিকআপ গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে চার নির্মাণ শ্রমিক নিহত হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আরও অন্তত ১১ জন আহত হয়। বৃহস্পতিবার (২ জানুয়ারি) সকালে ঢাকা-রায়পুর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশ্ববর্তী লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় পিকআপ ভ্যানটির চাকা ফেটে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার সমসেরাবাদ গ্রামের নুরুল আমিনের ছেলে মো. খোরশেদ (৩৫), টুমচর এলাকার শহিদুল হক পাটওয়ারীর ছেলে মো. রফিক (৫৫), এবং আবিরনগরের মজিবুল হকের ছেলে মফিজ উল্যাহ (৫০) ও আবদুল মান্নানের ছেলে আব্দুল নুর (৬০)। নিহতদের মরদেহ সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।

এদিকে সদর হাসপাতালে সৈয়দ আহমদ, বাবুল, আব্দুল নুর, নজির, আবুর বাশার, রবিন, ইয়াছিনসহ আহতরা চিকিৎসা নিয়েছেন। আহত আব্দুল নুরের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য নোয়াখালী নেওয়ার পথে তিনি মারা যান।
নিহতদের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে একটি ছোট পিকআপে চড়ে নির্মাণ শ্রমিকরা কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। গাড়িটি লক্ষ্মীপুর থেকে ছেড়ে চন্দ্রগঞ্জের দিকে যাচ্ছিল। ঢাকা-রায়পুর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশ্ববর্তী লক্ষ্মীপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি এলাকায় পৌঁছলে গাড়িটি একটি চাকা ফেটে যায়। এতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাড়িটি খাদে পড়ে যায়। লক্ষ্মীপুর আইডিয়াল আলিম মাদ্রাসার সিসিটিভি ফুটেজে গাড়িটি খাদে পড়ে যাওয়ার দৃশ্যটি দেখা যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে ১৫ জনকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ৩ জন মারা গেছেন। এরপর উন্নত চিকিৎসার জন্য আহত আব্দুল নুর নামে একজন নোয়াখালী নেওয়ার পথে মারা যায়।

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের মরদেহ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আজিজুর রহমান মিয়া জানান, চলন্ত একটি পিকআপের চাকা ফেটে খাদে পড়ে তিন নির্মাণ শ্রমিক নিহত ও ১২ জন আহত হয়েছে। এরপর চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত একজনের মৃত্যু হয়েছে। তবে অন্য আহতদের চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

Print Friendly, PDF & Email