আস্থা রক্ষা করব

সম্মেলনের মাধ্যমে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের আংশিক কমিটি ঘোষণা হলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি আগামী মঙ্গলবারই (২৪ ডিসেম্বর) ঘোষণা হবে বলে জানিয়েছেন দলটির পুনর্নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

রোববার (২২ ডিসেম্বর) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ কথা জানান।

দলের কাজ আর মন্ত্রণালয়ের কাজ করতে আমার অসুবিধা হয় না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেছেন, যে আস্থা নিয়ে নতুন মেয়াদে আমাকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে, আমি তা রক্ষা করব। পার্টির নতুন নেতৃত্ব ঢেলে সাজানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনি অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে হবে। সেই লক্ষ্যে আওয়ামী লীগকে আরো শক্তিশালী ও স্মার্ট করতে হবে।

বঙ্গবন্ধুর পরিবারের অন্য কেউ রাজনীতিতে আসবে কি না- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী জানান, শেখ রেহানা, সজিব ওয়াজেদ জয় ও সায়মা হোসেন পুতুলসহ বঙ্গবন্ধুর পরিবারের কেউ কমিটিতে আসতে ইচ্ছুক নন।

নির্বাচনি অঙ্গীকার ও প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়নের কথা উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমার কাছে অগ্রাধিকার পাবে নির্বাচনি অঙ্গীকার ও প্রধানমন্ত্রীর অঙ্গীকার বাস্তবায়ন।

তিনি বলেন, পার্টির নেতৃত্ব ঢেলে সাজানো হয়েছে। নতুন এই টার্মে তৃণমূলে আওয়ামী লীগকে আরো সক্রিয় ও গতিশীল করে গড়ে তোলা হবে।

শাজাহান খানকে কেন কমিটিতে রাখা হয়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটি দলের সিদ্ধান্ত।

আওয়ামী লীগের নতুন কমিটিকে বিএনপির পক্ষ থেকে অভিনন্দন জানানো হয়েছে, এটা দেশের রাজনীতির জন্য সুখবর বলেও মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

তিনি বলেন, জঙ্গি কার্যক্রম বন্ধ হয়েছে- এ কথা বলার সুযোগ নেই।  হয়তো বড় কোনো হামলার জন্য ঘাপটি মেরে আছে।

গত শুক্র ও শনিবার (২০ ও ২১ ডিসেম্বর) আওয়ামী লীগের দু’দিনের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের শেষ দিন কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতি হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হন বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হন ওবায়দুল কাদের।

ঘোষিত কমিটিতে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হিসেবে পুরনোদের মধ্যে স্থান পেয়েছেন সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফর উল্লাহ, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য্য, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, রমেশ চন্দ্র সেন, অ্যাডভোকেট আব্দুল মান্নান খান, আবদুল মতিন খসরু।

সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হিসেবে নতুন যুক্ত হয়েছেন শাজাহান খান, সদ্য বিদায়ী কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান।

নবগঠিত কমিটিতে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পুনরায় দায়িত্ব পেয়েছেন মাহবুব-উল-আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি। যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নতুন যোগ হয়েছেন বিদায়ী কমিটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

এছাড়া আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে শাম্মী আহমেদ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নদী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মৃণাল কান্তি দাস, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুন অর রশীদ, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন শামসুন নাহার চাঁপা, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদ ডা. রোকেয়া সুলতানা, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক পদে দেলোয়ার হোসেন দায়িত্ব পেয়েছেন।

সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন পুনরায় দায়িত্ব পেয়েছেন। এ পদে নতুন দায়িত্ব পেয়েছেন এস এম কামাল হোসেন ও মির্জা আজম।

পদোন্নতি পেয়ে দফতর সম্পাদক হয়েছেন বিদায়ী কমিটির উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। প্রচার সম্পাদক হয়েছেন ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ।

নতুন মুখ হিসেবে আইন বিষয়ক সম্পাদক পদে অ্যাডভোকেট নাজিবুল্লাহ হিরু ও মহিলা বিষয়ক সম্পাদক পদে মেহের আফরোজ চুমকি দায়িত্ব পেয়েছেন।

তবে এখনো অনেক পদ ফাঁকা রয়েছে। সেসব পদেই মঙ্গলবার দায়িত্বপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা হবে বলে জানালেন ওবায়দুল কাদের।

Print Friendly, PDF & Email