তের বছরে পছন্দ উনিশে প্রেম

তের বছরের নীলুফা তখনো বুঝতেই পারে নি কেউ তাকে ফলো করছে। ফলো করা চলছিলো অনেক দিন। যখন একদিন তাকে জানানো হলো তার প্রায় বছর ছয়েক আগে থেকে জহির উদ্দিন নামক একজন বয়সে অনেক বড় ব্যক্তি তাকে ফলো করছিলেন। সেদিনই প্রেমের প্রস্তাব করা হলো। তখন উনিশ বছরের নীলুফা এই প্রথম প্রেমের প্রস্তাব পেয়েছেন। তিনি সময় না নিয়ে হ্যাঁ করে দিলেন। একটি লোক ছ’বছর ধরে তাকে ফলো করছে। তার খেয়াল রাখছে। সে তো সারা জীবন খেয়াল রাখতে পারবে। এই ছিলো ভরসা।

উনিশ বছরে অনেক কিছুই বুঝতে পারা যায়। মেয়েদের জন্য উনিশ বছর আর ছেলেদের জন্য সেটা প্রায় ২৫ কি ত্রিশ বছর। অভিজ্ঞতা আর ধারনা এরকম বুঝদার বানায়। মেয়েদের সাথে ঘটে চলা নানান ঘটনা ছেলেদের থেকে অনেক বেশি হয়।

বেশিদিন প্রেম করতে হয় নি তাদের। জহির তাকে বিয়ের প্রস্তাব করে। পারিবারিক ভাবেই বিয়েটা হয়। প্রথমেই চলে খুব সুন্দর সংসার জীবন। জহিরের আছে ভাল চাকুরী। নীলুফার আছে আন্তরিকতা। সংসার আর স্বামী নিয়ে নীলুফার সুখ ছিলো অনেক বেশি।

কিন্তু বলে না? সব কিছু বেশিদিন গেলেও সুখ যায় না। চায়না প্রোডাক্টের মত এর স্থায়িত্ব। অনেক দিন স্থায়ী হয়ে যেতে পারে আবার এক সেকেন্ডের মধ্যেই শেষ। নীলুফার বেলায় খুব দ্রুত শেষ হয়ে গেল। জহির আরো একটি বিয়ে করে হাওয়া হয়ে গিয়েছেন। চিঠি লিখে গেছেন, আমাকে খুঁজবে না। আমি আসলে তোমার মধ্যে আমার সুখ পাই নি। আমার প্রকৃত সুখ আমি পেয়েছি হেমা’র কাছে। ও অনেক ভাল গান গায়। কবিতা পড়ে শোনায় ইত্যাদি ইত্যাদি।

নীলুফার প্রেম হার মানতে রাজি হলো না। সে আর কখনোই বিয়ে না করে বাকী জীবন কাটিয়ে দেয়ার চেষ্টা করল। ভালবাসা যায় একজনকেই। সব মানুষকে ভালবাসা যায় না। প্রেম সবাইকে করা যায় না। মমত্ব কিংবা সাহায্য অথবা পাশে গিয়ে দাঁড়ানোটা সবার সাথেই করা যায়। তাই বলে এক সাথে থাকা যায় না। পরিবার বাঁধা যায় না। সংসার এমনই হয়।

অনেক দিন কেটে গিয়েছিলো, নীলুফা একা একা বাঁচতে শুরু করা জীবন বয়সের ভারে নুয়ে পড়ছিলো। সে আশা বেঁধে মনে মনে শুধু জীবিকার জন্য যা দরকার তা ই করছিলো। ভেঙ্গে পড়ে নি বলা যায় না। কিছুটা মন তার ভেংগেছে। সে একা চলতে গিয়েও অনেক বাধা পেয়েছে। চারদিকের হাজারো আতংক তাকে দেখিয়েছে ইশারা। সে তো মেয়ে, মেয়েরা প্রেমে পড়ে যেমন সহজে তেমন সহজ তো ছিলো না তার জীবন। তাই বাইরের আর কোন কিছুই তাকে কব্জা করতে পারে নি।

মেয়েরা প্রেমে পড়ে, কখনো পড়তে বাধ্য হয়। তাই বলে মেয়েদের এই প্রেম মূল্যায়ন করতে না পারা ছেলেদের কারো কারো ব্যর্থতা ছাড়া আর কী ই বা হতে পারে?

এই বিভাগের আরো সংবাদ