কিভাবে চুমু খেতে হয়?

বিশেষজ্ঞরা বলেন, ভালোবাসা প্রকাশের যখন আর ভাষা খুঁজে পাওয়া যায় না তখন একমাত্র অবলম্বন হয়ে ওঠে চুমু। এটা আচরণের একটা ঢং যার মাধ্যমে আবেগগত যোগাযোগ ঘটে নারী-পুরুষের মাঝে। চুমু খাওয়া কোনো সাধারণ ধারণামাত্র নয়। এটা এটাকে শিল্প জ্ঞান করেন সম্পর্ক বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা। যদি কেউ চায় তো এতে সৃষ্টিশীল হয় ওঠাটাও অপরাধ নয়। প্রশ্ন হলো, কিভাবে চুমু খেতে হয়? জবাব দিচ্ছেন এক্সপার্টরা।

১. ফ্রেঞ্চ কিস : আবেগের পুরোটাই নাকি উপচে পড়ে ফ্রেঞ্চ চুম্বনে। এটি দারুণ অন্তরঙ্গতা প্রকাশের মাধ্যম। রোমান্সের চূড়ান্তে গিয়ে মনের পুরো ভালোবাসা স্পষ্ট হয় ফ্রেঞ্চ কিসে। এই চুমু সবচেয়ে জনপ্রিয় পদ্ধতি। ঠোঁটে ঠোঁট আবদ্ধ থাকবে। আর মুহূর্তগুলো ইন্দ্রজালের মতো ছড়িয়ে পড়বে শিহরণে। এখানে সঙ্গী-সঙ্গিনীর জিহ্বার ব্যবহার ফ্রেঞ্চ কিসকে আলাদা বৈশিষ্ট্য ও উত্তেজনা দিয়েছে।

২. সিঙ্গেল লিপ কিস : চটজলদি রোমান্স প্রকাশের অতুলনীয় উপায়। তোমাকে ভালোবাসি কথাটার আচরণগত প্রকাশ বলা হয় সিঙ্গেল লিপ কিস। এই চুমও আপন বৈশিষ্ট্যে জনপ্রিয়। দুজন দুজনের কাছাকাছি এসে ঠোঁটে ঠোঁট পড়বে। আলতো করে একটি চুমুতে চলে যেতে পারে কিছু সময়। অর্থাৎ ঠোঁটগুলো সক্রিয় থাকবে। মনে রাখতে হবে, এই চুমুতে দাঁতের ব্যবহার ঘটলেই বিপদ।

৩. লিজি কিস : কখনো দেখেছেন একটা গিরগিটি কিভাবে তার জিহ্বাটা বের করে? অনেকের কাছে আপত্তিকর ও বাজে মনে হতে পারে। কিন্তু অসংখ্য মানুষের কাছে বেশ প্রিয় উপায় ভালোবাসা প্রকাশের। তবে উপায়টা যে সিক্ত, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এই চুমুতে ঠোঁটের ব্যবহার ঘটে না। দুজনের জিহ্বা দায়িত্ব সারে। নোংরা মনে হতে পারে। কিন্তু যারা গভীর প্রেমে জড়িয়ে রয়েছেন অনেক দিন ধরে, তাদের কাছে অন্তরঙ্গতা প্রকাশের ঢং কিছুটা নোংরা হতেই পারে।

৪. আমেরিকান কিস : এটা ফ্রেঞ্চ কিসের মতোই। গভীর চুমুতে হারিয়ে যায় কপোত-কপোতি। তবে দুজনের দু জোড়া ঠোঁটই কেবল ব্যস্ত থাকে। বলা হয়, এই চুমু খেতে হলে স্বামী বা সঙ্গী তার সঙ্গিনীর কোমড়ের দুপাশে জড়িয়ে ধরে নিজের দিকে টানবেন। কিংবা একটা হাত তার পিঠে রাখতে পারেন। রোমান্টিক সময়টাকে আবেদনময় করে তোলে এই কিস।

৫. আইস কিস : একটু ভিন্ন উপায়ে চুমু খেতে চাইলে আইস কিসের তুলনা নেই। বেশ মজার এক উপায়। দুজনের ঠোঁটের মাঝে ধরতে হবে একটা আইস কিউব। এবার আইসটাকে চুমু খেতে খেতে এগিয়ে যেতে হবে। এক সময় বরফ গলবে এবং শীতল দুই জোড়া ঠোঁট এক হবে।

৬. নিবল কিস : সঙ্গীর মাঝে শিহরণ ও উত্তেজনা ছড়িয়ে দিতে এই চুমু অনবদ্য। সঙ্গিনী তার সঙ্গীর নিচের ঠোঁটে ঠোঁট রাখবেন। আর দাঁতের হালকা স্পর্শ পড়বে তাকে। আলতো কামড়ও চলতে পারে। তবে মনে রাখতে হবে, দাঁতে জোর খাটালে ব্যথা পেতে পারেন অপরজন। এতে মুহূর্তটাই নষ্ট হবে। সাবধান থাকলে দারুণ রোমাঞ্চকর।

৭. লিপ ট্রেস কিস : যেন দুজন কোনো খেলায় মেতে উঠেছেন। সবগুলোর মধ্যে এটাকেই সুমিষ্ট বলে উল্লেখ করা হয়। চোখ বন্ধ করে জিহ্বা দিয়ে সঙ্গী-সঙ্গিনীর ঠোঁট খুঁজে নিতে হবে। এরপর হালকা চুমু। সময়টাকে বিস্ময়করভাবে মিষ্টি করে দেয় লিপ ট্রেস কিস। দুজনের মাঝেই চুমু হয়ে ওঠে নেশার মতো। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া