বাদশাহ নিজেই অলক্ষুনে

বাদশাহ আকবর ঘোষণা করলেন, আমার দেশে কোন অলক্ষুনে মানুষ থাকতে পারবে না। যেখানে যত অলক্ষুনে মানুষ পাও-ধরে নিয়ে আসো।

এত বড় দেশ, যার যার সাধ্যমতো অলক্ষুনে লোক ধরে নিয়ে আসতে লাগলো।
কেউ বা শত্রুতা উদ্ধার করতে বলছে, হুজুর আমি রাস্তায় এ লোককে দেখার উপর রাস্তায় উষ্টা খেয়েছি। এ লোককে দেখার পর আমি সকাল থেকে কয়েকবার টয়লেটে আসা যাওয়ার মধ্যই আছি!
তো একদিন বাদশাহ আকবর গোসল করতে গিয়ে ঘাটলায় পা পিছলে পড়ে গিয়ে মারাত্মক আহত হয়।
চারদিক রব-রব খোঁজ খোঁজ পড়ে গেলো, আজ সকালে ঘুম থেকে উঠার পর বাদশাহ প্রথমে কাকে দেখেছেন?
কার বদনখানী দেখার পর আমাদের প্রানপ্রিয় বাদশাহ মহোদয়ের এমন বিপদ?
বাদশাহ অনেকক্ষণ চিন্তা করে দেখলো বাদশার সবচেয়ে আপন মানুষ, যাকে ছাড়া বাদশাহ একবিন্দুও পা নাড়ান না।
এদিকে সমাজের সবচেয়ে কুলক্ষুনে ব্যক্তি তার সভাসদে!!
এদিকে উজির-নাজির ও অন্য সভাসদদের ছাপে পড়ে বাদশাহ অবশেষে স্বীকার করলেন, তিনি আর কেউ নয় তার জ্ঞানের ভান্ডার বিরবলের মুখটি দেখেছেন।
ব্যাস!
আর যায় কই?
এমনিতে প্রতিদিন বিরবলের জ্ঞানের ভান্ডারের কারনে অন্য কেউ তেমন একটা সুযোগ পেতো না। আর সে লোক এতটা অলক্ষুনে?
এ সুযোগ কাজে লাগাতে হবেই হবে।
বাদশাহকে রাজী করাতে প্রথম কষ্ট হলেও বাদশাহও মিনমিনে করে রাজী হলেন, বিরবলকে শূলে (ফাঁসি) ছড়াতে।
ফাঁসির সময়-বিরবলও প্রস্তুত!!
বিরবলের এমন বিপদে বিরবলকে নির্বিকার দেখে বাদশাহ বিরবলকে প্রশ্ন করলেন, বিরবল- তুমি কি হতাশ নয়?
তুমি কি ভয় পাচ্ছো না?
বিরবলের উত্তর না হুজুর, আপনার আদেশ শিরোধায্য…
তবে আমার একটা দুঃখ রয়ে গেছে। আপনাকে এতবড় অলক্ষুনে এতবড় অপরাধী করে আমি মরে যাচ্ছি!!
বাদশাহ বিরবলের উদ্দেশ্য বুঝতে না পেরে প্রশ্ন করলেন কেন কেন ? এমন কথা বলছো?
বিরবলের সহজ সরল উত্তর, হুজুর আপনি আজ সকাল আমাকে দেখেছেন?
বাদশাহ: হুম-তোমাকে দেখার পরই তো আমার কোমর ভেঙ্গেছে।
বিরবল: হুজুর সকালে আপনি আমাকে প্রথমে দেখেছেন, আর আপনার কোমর ভেঙ্গেছে।
কিন্তু…….
আজ সকালে আমি ঘুম উঠে প্রথমে আপনাকে দেখেছি।
আপনি আমাকে দেখার পর আপনার কোমর ভেঙ্গেছে–আর আপনাকে আজ সকালে দেখার পর আমার ফাঁসির হুকুম হয়েছে- আমি ফাঁসি কাষ্ঠে ঝুলার দ্বারপ্রান্তে…
তাহলে আমার প্রশ্ন, আমার মুখ দেখে আপনার কোমর–আর আপনাকে দেখার পর আমি ফাঁসিতে!!
তাহলে কে বেশি অলক্ষুনে/
আমি?
না আপনি?

দেশের তৈলবাজরা বিষয়টা মেনে নিতেন পারছেন না, তাদের বাদশাহ কখনো অলক্ষুনে হতে পারে না। না না আমাদের বাদশাহ অবশ্যই মহান–তিনি সেরা।
অবশেষে: বাদশাহ রেহাই পেলো অলক্ষুনের তকমা থেকে আর বিরবলের রক্ষা পেলো জীবন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ