লক্ষ্মীপুরে ভাগিনাকে মারধরের প্রতিবাদ করতে গিয়ে মামা খুনের ঘটনায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে ভাগিনাকে মারধরের ঘটনার প্রতিবাদ করায় মামা আনিছুর রহমান আজাদ (৪৫)কে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। এ মামলায় আটক অভিযুক্ত মহসিনকে গ্রেফতার দেখিয়ে মঙ্গলবার (৯ জুলাই) দুপুরে লক্ষ্মীপুর আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে সোমবার (৮জুলাই) রাতে উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের উত্তর ভাটরা গ্রামে নন্দিয়ারা এলাকায় মামা আজাদকে কুপিয়ে হত্যা করে মহসিন নামে এক যুবক। এসময় আহত হয় ইব্রাহিম মিয়া নামে আরেক ব্যক্তি। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে অভিযুক্ত মহসিনকে আটক। পরে রাতেই নিহতের স্ত্রী সেলিনা আক্তার বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এতে মহসিনকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

নিহত আনিছুর রহমান উত্তর ভাটরা গ্রামে নন্দিয়ারা এলাকায় রফিকুল ইসলামের ছেলে। সে আওয়ামীলীগের একজন কর্মী। গ্রেফতারকৃত মহসিনের একই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে।

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজাদের ভাগিনা উপজেলা ছাত্রলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক রিয়াদ হোসেন টিটুকে মারধর করে মহসিন। মারধরের শিকার টিটু বিষয়টি তার মামা আজাদকে জানায়। এসময় ভাগিনাকে মারধরের প্রতিবাদ করতে গেলে আজাদের সাথে মহসিনের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ধারালো অস্ত্র (দাও) দিয়ে মামা আজাদকে এলোপাতারি কুপিয়ে হত্যা করে মহসিন। এসময় বাঁধা দিতে গেলে ইব্রাহিম মিয়া নামে একজনকেও কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করে সে। পরে স্থানীয়রা তাঁদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে মামা আজাদকে মৃত ঘোষণা করে এবং আশঙ্কাজনক হওয়ায় ইব্রাহিম মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে পাঠায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মহসিনকে আটক করে এবং নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

এ ব্যাপারে রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী থানায় মামলা করেছেন। এ ঘটায় আটক মহসিনকে মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়। এছাড়াও ঘটনার আলামত ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

শীর্ষ সংবাদ/এফএইচ