লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল গেইটে তালা: এ কেমন নিষ্ঠুরতা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালের সামনের রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করলে দীর্ঘ সময় জ্যামে আটকে থাকতে হয়। তাই মুমূর্ষ রুগী ও জরুরী প্রয়োজনে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার বাসভবনের সামনের রাস্তাটি দিয়ে এম্বুলেন্স এবং কিছু রিক্সা চলাচল করতো। এতে বিকল্প সড়কটি দিয়ে রোগীদের দ্রুত হাসপাতালে আনা-নেওয়া করা যেতো।

কিন্তু গত ৭-৮ দিন পূর্বে সদর হাসপাতাল ও জেলা পরিষদের সীমানা গেইটটি ভেঙ্গে রাস্তায় পড়ে যায়। কিন্তু গেইটটি সরিয়ে নেয়নি কর্তৃপক্ষ।
অভিযোগ রয়েছে, উল্টো ভাঙ্গা গেইটে তালা লাগিয়ে রাস্তাটি বন্ধ করে দিয়েছেন জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। তাইতো এম্বুলেন্স চালক বেলাল হোসেন বলেন, রোগীদের সাথে এ কেমন নিষ্ঠুরতা লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার।

জানা যায়, লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল থেকে বাইরের কোন জেলায় দ্রুত রোগী নেওয়ার জন্য এ রাস্তাটি ব্যবহার করেন এম্বুলেন্স চালকরা। এছাড়াও রোগী ও তাদের স্বজনরা এ পথে হাসপাতালে বেশি আসা যাওয়া করেন। কিন্তু হঠাৎ করে রাস্তাটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েন তারা।

কয়েকজন রিক্সা চালকের সাথে কথা বলে জানা যায়, ভেঙ্গে যাওয়া গেইটটি সরানো চেষ্টা করেছেন তারা। কিন্তু পরিষদের কর্মচারিরা সরাতে দেয়নি। উল্টো নির্বাহী’র আদেশে ভাঙ্গা গেইটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছেন। এখন হাসপাতালে রোগী নেওয়ার জন্য অন্য রাস্তা ব্যবহার করতে হয়। ফলে একদিকে যেমন সময় বেশি লাগে, অন্যদিকে থাকে রোগীর মৃত্যু ঝুঁকি।

এ বিষয়ে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মীর শওকত হোসেন বলেন, গেইটটি ভেঙ্গে পড়ে গেছে। কেউ ভেঙ্গে রাস্তায় ফেলে রাখেনি। সরিয়ে নেওয়ার কোন উদ্যোগ নিয়েছেন কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আপাতত নেই। তবে কিছুদিন পরে বরাদ্ধ নিয়ে নতুন গেইট নির্মান করা হবে। তখন গাড়ি চলাচল করতে পারবে।

এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: শাহজাহান বলেন, অতিরিক্ত গাড়ি ও লোকজন বেশি চলাচল করায় নির্বাহী’র চলাচলে সমস্যা হচ্ছে। এজন্য রাস্তাটি বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে নির্বাহীর সাথে যোগাযোগ করে খুব শীঘ্রই রাস্তাটি খুলে দেওয়া হবে।

শীর্ষ সংবাদ/এফএইচ