ঈদকে সামনে রেখে বেপরোয়া লক্ষ্মীপুরের সিএনজি চালকরা, দেখার যেন কেউ নেই !

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে লক্ষ্মীপুরের সিএনজি চালকরা। তিনজন যাত্রীর আইন অমান্য করেই অতিরিক্ত যাত্রী বহন ও ভাড়া আদায় করছেন তারা। প্রতিবাদ করলেই সিএনজি থেকে নামিয়ে দেওয়া হয় যাত্রীদের। পাশাপাশি অপমান করা হচ্ছে। আর চালকদের এসব অনিয়ম যেন দেখার কেউ নেই এই জেলায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সড়ক দূর্ঘটনা এড়াতে সিএনজি চালিত অটোরিকশায় তিনজনের বেশি যাত্রী নেওয়া যাবে না। গত রবিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আর এ আইনটি অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা।

তবে এমন সিদ্ধান্তের পর চালকরা যাত্রীদের থেকে আদায় করছেন অতিরিক্ত অতিরিক্ত ভাড়া। কিন্তু মানছেনা তিন যাত্রীর সেই আইনটি। পূর্বের ন্যায় ছয় থেকে সাতজন যাত্রী বহন করছেন সিএনজিতে। অন্যদিকে কোন যাত্রী এর প্রতিবাদ করলেই নামিয়ে দেওয়া হয় সিএনজি থেকে। পাশাপাশি বিভিন্ন অপমান জনক কথা বলেন।

সদর উপজেলার কাপিলাতলী থেকে লক্ষ্মীপুর আসার পথে গত রবিবার (২৬ মে) এমনি একটি ঘটনা ঘটেছে সাগর নামে এক যাত্রীর সাথে। সাগর বলেন, ইউনুস পরিবহন নামে সিএনজিটি তিনজন যাত্রী নিয়ে বরইতলা নামক স্থানে পৌঁছান। সেখানে দাড়িয়ে থাকা একজন মহিলা ও তিন শিশুকে সিএনজিতে নিতে যাচ্ছেন। এতে সাগর প্রতিবাদ করলে তাকে নামিয়ে দেওয়া হয় সিএনজি থেকে। পাশাপাশি বিভিন্ন অপমান জনক কথা বলেন চালক সজিব হোসেন।

কয়েকজন যাত্রীর সাথে কথা বলে জানা যায়, তিনজন যাত্রীর আইন করার পর যাত্রীদের চেয়ে বেশি লাভবান হয়েছে চালকরা। তারা ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছে, কিন্তু তিনজন যাত্রীর আইন মানছে না। প্রতিবাদ করলে উল্টো যাত্রীদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। গাড়ি থেকে নামিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এনিয়ে প্রায় সময় যাত্রী ও চালকের মারামারির ঘটনাও ঘটছে। তবে চালকরা বেশি অপমান করেন স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্রী ও মহিলাদের।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে কযেকজন চালক বলেন, রাস্তায় বিভিন্ন নামে বেনামে জিপি (চাঁদা) ও গাড়ির জমা বেশি, তাই তিন যাত্রী বহন করা সম্ভব নয়। এজন্য পূর্বের ন্যায় অতিরিক্ত যাত্রী বহন করছেন। তবে পূর্বের ন্যায় ভাড়া নিচ্ছেন না কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, নিত্যপণ্যসহ সকল জিনিসের দাম বেশি, তাই ভাড়াও বেশি।

এ ব্যাপারে জেলা সিএনজি মালিক সমিতি ও শ্রমিক সমিতির কোন বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শীর্ষ সংবাদ/এফএইচ