লক্ষ্মীপুরে শিক্ষকের বহিস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জন

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পরকীয়া প্রেমের অভিযোগে অভিযুক্ত শ্যামলী আইডিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ লক্ষ্মীপুর শাখার শিক্ষক কামাল হোসেন ও অফিস সহকারী শাহনাজ আক্তারকে বহিস্কারের দাবিতে ক্লাস বর্জন করেছে শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার (১৪ মে) সকাল ১১টায় থেকে শুরু করে ঘন্টাব্যাপী ক্লাস বর্জন করা হয়। শিক্ষকরা পরিস্থিতি শান্ত করতে দুই দিনের মধ্যে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন শিক্ষার্থীদের। পরে আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক ও অফিস সহকারীর পরকীয়ার বিষয়টি ‘শীর্ষ সংবাদ’ নামে একটি অনলাইন পত্রিকার সংবাদের মাধ্যমে জানাতে পারেন। তাই অভিযুক্তদের বহিস্কারের দাবিতে ক্লাস বর্জন করে আন্দোলন করছেন। বহিস্কার করা না হলে, ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করবেন বলে জানান।

দশম শ্রেনীর এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকদের এমন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের ফলে, বিভিন্ন স্কুল-কলেজের বন্ধুরা তাদের অপমান করে। তাদেরকে নিয়ে বিদ্রুপ মন্তব্য করে। সে আরো বলেন, এর আগেও প্রতিষ্ঠানটির গনিত বিষয়ের শিক্ষক আকবর হোসেনকে একই সমস্যার কারনে প্রতিষ্ঠানটি থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। তাহলে কেন একই অভিযোগে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান এম এ সাত্তারের মামাতো বোন ও শিক্ষক কামাল হোসেনকে বহিস্কার করা হবে না।

এদিকে পরিস্থিতি শান্ত করতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন তদন্ত কমিটির প্রধান মোশারফ পাটোয়ারি ও শিক্ষকরা। পরে শিক্ষার্থীরা আগামীকাল পর্যন্ত তাদের আন্দোলন স্থগিত করেন।

এ বিষয়ে কলেজের অধ্যক্ষ বাবুল হোসেন বলেন, অভিযুক্তদের বহিস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছে। অভিযুক্তদের যথাযথ শাস্তির আশ্বাস দিয়েছেন, শিক্ষার্থীরাও তাদের আন্দোলন প্রত্যাহার করেন। এছাড়াও বিষয়টি তদন্ত করার জন্য মোশারফ পাটোয়ারিকে প্রধান  করে তিন সদস্যর একটি টিম গঠন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান এম এ সাত্তার ও তদন্ত কমিটির প্রধান মোশারফ পাটোয়ারির কোন বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শীর্ষ সংবাদ/এফএইচ