দেহরক্ষীকে বিয়ে করে রানি বানালেন থাই রাজা

ত দিন ছিলেন রাজার দেহরক্ষী, এখন হয়ে গেলেন রানি। এ যেন রূপকথার গল্পের মতো কোনো ঘটনা। কিন্তু আদতে এটাই ঘটেছে। থাইল্যান্ডের রাজা বিয়ে করেছেন তার দেহরক্ষী বাহিনীর উপপ্রধানকে।

বিবিসি জানায়, এক বিবৃতিতে থাই রাজপরিবার এ খবর নিশ্চিত করেছে। এ ছাড়া রাষ্ট্রীয় টিভি চ্যানেল প্রচার করেছে রাজার বিয়ের অনুষ্ঠানের ভিডিওচিত্রও।

শনিবার আনুষ্ঠানিক রাজ্যাভিষেকের কথা রয়েছে দেশটির রাজা মাহা বাজিরালংকর্নের। তার আগে রাজার এ বিয়ের খবর রীতিমতো অবাক করে দিয়েছে দেশটির জনগণকে।

বুধবার ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষী বাহিনীর উপপ্রধান সুতিদা তিদজাইর সঙ্গে বিয়ে করেন তিনি।  স্ত্রীকে ‘রানি সুতিদা’ উপাধি দিয়েছেন রাজা।

৬৬ বছর বয়সী রাজা বাজিরালংকর্নের চতুর্থ স্ত্রী রানি সুতিদা। আগের তিন স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ ঘটেছে রাজার। তার সাতটি সন্তানও রয়েছে।

রানি সুতিদা তিদজাই ছিলেন থাই এয়ারওয়েজের ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট। ২০১৪ সালে তাকে দেহরক্ষী বাহিনীর উপপ্রধান হিসাবে নিয়োগ করেন রাজা। এই সময় থেকেই রাজার সঙ্গে সুতিদার প্রেমের গুঞ্জন ওঠে। যদিও তাকে কখনই স্বীকৃতি দেয়নি রাজপরিবার।

পরবর্তীতে ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসে সুতিদাকে রয়্যাল থাই সেনাবাহিনীর জেনারেল পদে বহাল করেন রাজা। ২০১৭ সালে তাকে রাজার ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বাহিনীর উপপ্রধান পদে উন্নীত করা হয়।

২০১৬ সালে মারা যান থাইল্যান্ডের পূর্ববর্তী রাজা ভূমিবল আদুলাদেজ। ৭০ বছর ধরে দেশটির রাজা ছিলেন ভূমিবল। তিনি ছিলেন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সময় ধরে সিংহাসনে থাকা রাজা।

তার মৃত্যুর পরে সে বছরের অক্টোবর মাসে দেশের সাংবিধানিক রাজা হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন যুবরাজ বজিরালংকর্ণ। আগামী শনিবার ব্রাহ্মণ ও বৌদ্ধ ধর্মমতে  আনুষ্ঠানিক অভিষেক হওয়ার কথা।