লক্ষ্মীপুরে বোনকে উত্যক্ত করায় যুবককে চুরি মেরে ভাই কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক :
লক্ষ্মীপুরের দত্তপাড়া এলাকায় বোনকে উত্যক্ত করায় অভিযুক্ত যুবককে ছুরিকাঘাত করে গণপিটুনির শিকার নাজিম হোসেন সিপাত নামে এক ভাই কারাগারে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ভাই সিপাত নোয়াখালী জেলার চাটখিলের রাম নারায়নপুর গ্রামের ওমর ফারুকের ছেলে। ঘটনাটি শনিবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলার দত্তপাড়া বাজার এলাকায় ঘটে। উত্যক্তকারী আহত যুবকের নাম শুভ। সে দত্তপাড়া এলাকার আবুল হোসেন এর ছেলে। তার বিরুদ্ধে এলাকায় চুরি, ছিনতাই ও মেয়েদের উত্যক্ত করার অভিযোগ রয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন দরে বখাটে যুবক শুভ পাশ^বর্তী জেলার সিপাতের বোনকে প্রেমের প্রস্তাবে উত্যক্ত করে আসছে। এর প্রেক্ষিতে সিপাতের পরিবারের লোকজন বোনকে শুক্রবার অন্যত্র বিয়ে দিয়ে দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সিপাতের বোনকে বিয়ের আসর থেকে তুলে আনার হুমকিধমকি দেয় শুভ। এমনকি বিয়ের পূর্বে বৃহস্পতিবার সিনেমা ষ্টাইলে লোকজন নিয়ে বোনকে তুলে আনতেও যায় সে। স্থানীয়দের তোপের মুখে বাধাঁগ্রস্থ হয়ে ফিরে আসে। পরে বিষয়টিকে কেন্দ্র করে শনিবার সন্ধ্যায় সিপাত দত্তপাড়া বাজারে এলে উত্যক্তকারী শুভর সাথে কথা কাটাকাটি হয় এবং এক পর্যায়ে শুভর গাঁড়ে ছুরিকাঘাত করে সে। এসময় শুভর অনুসারীরা সিপাতকে এলোপাতাড়ি পিটুনি দিয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়। এসময় খবর পেয়ে সিপাতকে বাঁচাতে তার মামা পল্লী চিকিৎসক কামরুল হাসান এগিয়ে এলে তাকেও মারধর করা হয়।

পরে স্থানীয় উত্তর জয়পুর ইউনিয়ণ যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মহসিন খোকন ঘটনাস্থলে পৌঁছে গনপিটুনিতে নিহত হওয়ার হাত থেকে সিপাতকে উদ্ধার করে। পরে ছুরিকাঘাতের ঘটনাটি জানার পর তাকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। আহত শুভ বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন রয়েছে। এ ঘটনায় রাতেই আহত শুভর বাবা আবুল হোসেন চন্দ্রগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করলে সিপাতকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করে পুলিশ।

আহত শুভর মা মনোয়ারা বেগম বলেন, আমার ছেলে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করে। সে কোন মেয়েকে উত্যক্ত করেনি। অন্যায় ভাবে আমার ছেলের ঘাড়ে ছুরিকাঘাত করে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার দাবী করি।

এদিকে সিপাতের মামা পল্লী চিকিৎসক কামরুল হাসান বলেন, আমার ভাগনীকে বিয়ে দেওয়ার খবর শুনে শুভ লোকজন নিয়ে বিয়ের আসর থেকে তুলে আনার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়। শনিবার সন্ধ্যায় ভাগিনা সিপাত দত্তপাড়া বাজারে এলে শুভ তার সাথে বাকবিতান্ডা জড়িয়ে পড়ে এবং সিপাতকে মারধর করা হয়। খবর শুনে তাকে উদ্ধার করতে গেলে আমিও মারধরের শিকার হই।

এ ব্যাপারে উত্তর জয়পুর ইউনিয়ন যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মহসিন খোকন বলেন, দত্তপাড়া বাজারের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় দেখতে পাই বাজারে অনেকগুলো মানুষ সিপাতকে গণপিটুনি দিচ্ছে। এতে ছেলেটির প্রাণ হানির আশঙ্কা ছিলো। তাই ঘটনাস্থল থেকে গণপিটুনিতে নিহত হওয়ার হাত থেকে সিপাতকে রক্ষা করে সিএনজিতে বসাই। চুরিকাঘাতের বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশে সোপর্দ করি।

জানতে চাইলে দত্তপাড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক জসিম উদ্দিন বলেন, ছুরিকাঘাতের ঘটনায় ভাই সিপাতকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে বোনকে উত্যক্ত করায় ভাই বাধ্য হয়েই ছুরিকাঘাত করেছে। তাছাড়া আহত শুভের বিরুদ্ধেও এলাকায় চুরি, ছিনতাই ও উত্যক্ত করার অসংখ্য অভিযোগ আছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।