লক্ষ্মীপুরে জমি বিরোধে মসজিদের ইমামকে কুপিয়েছে প্রতিপক্ষ

 

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ওসমান গনি (২৮) নামে এক ইমামকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় ওই ইমামকে উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। যাহার ভর্তি রেজি: নং-৩৪০/৩৪। শনিবার দুপুর ১২টার দিকে সদর উপজেলার কালিচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর পক্ষে আদালতে অভিযোগ করলে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে এফআইআর হিসেবে মামলা নেওয়ার নির্দেশ দেয় আদালত। এদিকে ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে স্থানীয় এলাকাবাসী।
আহত ওসমান গনি ফেনী জেলার ছাগল নাইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও থানা মসজিদের ইমাম এবং লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার কালির চর গ্রামের মহি উদ্দিনের ছেলে।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন যাবৎ ওসমান গণি’র পরিবারের সাথে স্থানীয় কালিরচর গ্রামের শাহ আলম গংদের জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। গত শনিবার (৫ জানুয়ারী) মো: শাহ আলম, তার ছেলে মুজাহিদ ও মাহমুদ সহ ৫/৬ জন দলবদ্ধ হয়ে বিরোধীয় সম্পত্তির একটি কড়ই গাছ কাটা শুরু করে। এসময় ওসমান গণি বাঁধা দিলে তারা (মুজাহিদ গং) দা ও লাঠিসোটা নিয়ে ওসমানের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে হত্যার উদ্দেশ্যে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ওসমান গনির মাথা রক্তাক্ত জখম করে। এসময় তার পিতা মহি উদ্দিন উদ্ধার করতে এগিয়ে আসলে তাকেও এলোপাতাড়ি মারধর করে প্রতিপক্ষরা। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে তাদের হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন।

আহত ওসমান গণির পিতা মহি উদ্দিন বলেন, ওসমান গণির মাথায় গুরুতর জখম হয়েছে। তার মাথায় ছয়টি সেলাই ও সিটি স্ক্যান করা হয়েছে।

এ ঘটনায় ৬ জানুয়ারী ওসমান গনি বাদি হয়ে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতে অভিযোগ দায়ের করেন। এতে মুজাহিদ, মাহামুদ ও শাহ আলমকে আসামী করা হয়।

সোমবার (১৪ জানুয়ারী) দুপুরে সাংবাদিকদের কাছে স্থানীয় এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, মুজাহিদ সরকারি চাকুরী করায় এলাকায় প্রভাব বিস্তার করছে। এসব বিষয়ে এর পূর্বেও জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এলাকাবাসী। কোনো প্রতিকার ব্যবস্থা না হওয়ায় দিন দিন মুজাহিদের পরিবার স্থানীয়দের উপর অত্যাচার-নির্যাতন চালিয়ে যাচ্ছে এমন অভিযোগ করেন এলাকাবাসী। এনিয়ে ওই এলাকার একাধিক ভুক্তভোগি পরিবার এসব অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুজাহিদ বলেন- দীর্ঘ দিন যাবত একটি কু-চক্রী মহল আমাদের পরিবারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তবে তিনি উল্লেখিত ঘটনার সাথে জড়িত নয় বলেও জানান।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সৈয়দ নুরুল আমিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মুজাহিদ এলাকায় বিভিন্ন অজুহাতে অপ-প্রভাব বিস্তারের পাঁয়তারা করছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কমৃকর্তা (ওসি) মো: লোকমান হোসেন বলেন- ইমামকে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় থানায় মামলা ( সদর থানার মামলা নং-১২, তাং-০৭.০১.১৯) দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

শীর্ষ সংবাদ/এফএইচ