শেখ হাসিনার সংগ্রাম ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবে

ঢাকা : স্বৈরশাসনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় অসামান্য অবদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাঙ্গালী জাতির ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবেন। গভীর ধ্বংসস্তুপের মধ্যে থেকে কিভাবে সংগ্রাম করতে হয়, আবার সেই সংগ্রামে বিজয়ী হয়ে জাতিকে দীর্ঘদিন নেতৃত্ব প্রদান এবং উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় শোপানে দেশকে তুলে আনার যে দৃষ্টান্ত তিনি স্থাপন করেছেন তা পৃথিবীতে বিরল।
বুধবার রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের বেগম সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেসসচিব আসিফ কবীর সম্পাদিত ‘জননেত্রীর জয়যাত্রা’ গ্রন্থের পরিচিতি অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানী বিযয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক মূখ্যসচিব কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্ষ আ আ স ম আরেফিন সিদ্দিক, বঙ্গবন্ধু জাদুঘরের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান, লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ, মুক্তিযোদ্ধা লে. কর্নেল (অব.) সাজ্জাদ জহির বীরপ্রতীক, গ্রন্থের প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান পাঠক সমাবেশের প্রকাশনা প্রধান ওয়াহিদুল হক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
‘জননেত্রীর জয়যাত্রা’ গ্রন্থটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক জীবনভিত্তিক দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন সংকলন। বইটিতে ১৯৮১ থেকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত দৈনিক বাংলা ও সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রীর ৯১০টি বক্তব্য স্থান পেয়েছে। তিন খন্ড সংকলনের প্রথম খন্ড আজ প্রকাশিত হলো।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানী বিযয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, ধ্বংসস্তুপের ওপর দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব গ্রহণ করেছিলেন এবং নিজের আদর্শে বলীয়ান হয়ে আজকের অবস্থানে এসেছেন। যে দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা নিয়ে একসময় ঠাট্টা করা হত, সেই দেশ আজ অন্যের কাছে রোল মডেল হয়েছে। এর পেছনে প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্ব মূল ভূমিকায় ছিল।
তিনি বলেন, নতুন প্রজন্মের কাছে শেখ হাসিনাকে তুলে ধরার মধ্যে দিয়ে তাদেরকে সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে। সেক্ষেত্রে ‘জননেত্রীর জয়যাত্রা’ বইটি বড় ভূমিকা রাখবে।পাশাপাশি গবেষক বা যারা ইতিহাস রচনা করবেন তাদের বিশেষ সহায়ক হবে।
তিনি প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্ব এবং উন্নয়ন-অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশবাসীকে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার আহবান জানান।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্ষ আ আ স ম আরেফিন সিদ্দিক ‘জননেত্রীর জয়যাত্রা’ গ্রন্থকে বাংলাদেশের ইতিহাসের স্মারক বলে অভিহিত করে বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় শেখ হাসিনার দীর্ঘ সংগ্রামকে বাদ দিয়ে ইতিহাস রচিত হতে পারে না। তার সেই দীর্ঘ সংগ্রামের জন্য তিনি বাঙ্গালী জাতির ইতিহাসের অংশ হয়ে থাকবেন। এই বইটিতে প্রধানমন্ত্রীর সেই দীর্ঘ সংগ্রামের কথা উঠে এসেছে।
বইটি ভবিষ্যত গবেষকদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ উৎস্য হিসেবে কাজ করবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।
লেখক সৈয়দ আবুল মকসুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গনতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছেন। সেই লড়াইয়ে তিনি বিজয়ী হয়ে দীর্ঘদিন ধরে জাতিকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। নির্যাতিত হয়েছেন।তার সেই সংগ্রামের গল্প ‘জননেত্রীর জয়যাত্রা’ বইয়ে সুন্দরভাবে উঠে এসেছে।
তিনি বলেন, সংবাদপত্র উড়ন্ত ইতিহাস হিসেবে কাজ করে। পত্রিকায় প্রকাশিত শেখ হাসিনার বক্তৃতাসমূহ আসিফ কবীর সংকলন করে ইতিহাস হিসেবে তুলে ধরেছেন। বইটি ভবিষ্যতের গবেষকদের পথ দেখাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

–বাসস