শিল্পকলা একাডেমিতে চলছে ‘বাংলাদেশের নৌকা’ আলোকচিত্র প্রদর্শনী

Print Friendly, PDF & Email

আলোকচিত্রে উঠে এসেছে মুক্তিযুদ্ধের সময় গেরিলাদের ব্যবহৃত নৌকার ইতিহাস। নৌকায় চড়ে মুক্তিসেনারা দেশের বিভিন্ন রণাঙ্গণে পাকিস্তানী বাহিনীর বিরুদ্ধে অবর্তীর্ণ হন যুদ্ধে। সেই সব ইতিহাস শিল্পীর আলোকচিত্রে ধারণ করা নৌকার মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে।

মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়ের ৪৭ বছর উদযাপন উপলক্ষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত ‘বাংলাদেশের নৌকা’ শীর্ষক আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে এই ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিদিন বিপুলসংখ্যক দর্শনার্থী উপভোগ করছেন ব্যাতিক্রমধর্মী এই প্রদর্শনী।

‘শিল্পী এম এ তাহের-এর ক্যামেরার ধারণ করা নৌকার ইতিহাস পড়ে ও যুদ্ধের সময়ে ব্যবহার করা নৌকাগুলো দেখে দর্শকদের অনেকেই আবেগাল্পুত হয়ে পড়ছেন। আলোকচিত্রের পাশেই লেখা রয়েছে একাত্তরের যুদ্ধে কোথায় কোন নৌকা গেরিলারা তাদের কাজে ব্যবহার করেছেন। এ ছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নানা আকারের নৌকার আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে।

শিল্পী হাসেম খান বাসসকে প্রদর্শনী সম্পর্কে বলেন, নৌকা বাঙালির সংস্কৃতির অন্যতম পুরনো ইতিহাস। এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে গেরিলাদের ব্যবহার করা নৌকা। নৌকা মুক্তিযুদ্ধে আমাদের অনেক বড় অস্ত্র ছিলো। নৌপথে মাঝিরা ও যোদ্ধারা নৌকার মাধ্যমে অনেক অপারেশন পরিচালনা করেছেন। যুদ্ধের সময় এম এ তাহের কিছু নৌকার ছবি তুলেছিলেন। গেরিলাদের নৌকার ছবি তুলেছিলেন। ওই সব নৌকার আলোকচিত্রও প্রদশর্নীতে রয়েছে। তা ছাড়া বিভিন্ন আকৃতির নৌকার ছবিও রয়েছে। এ সব নৌকা আমাদের ইতিহাসের অংশ।

শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়ের ৪৭ বছর উদ্যাপন উপলক্ষে একাডেমির উদ্যোগে চারুকলা বিভাগের ব্যবস্থাপনায় এই প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে , মূলত নৌকার ইতিহাস তুলে ধরার জন্য। খ্যাতিমান আলোকচিত্র শিল্পী ও লেখক এম এ তাহের-এর যুদ্ধের সময় কিছু নৌকার ছবি তুলেছিলেন, সেই সব নৌকাগুলোর আলোকচিত্রও প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা ভবনের ১ নম্বর গ্যালারিতে এই প্রদর্শনী চলছে। প্রদর্শনী চলবে আগামী ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস পর্যন্ত। গত পয়লা ডিসেম্বর শুরু হয় এই প্রদর্শনী । প্রতিদিন সকাল দশটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত রাখা হচ্ছে।

সুত্র- বাসস