লক্ষ্মীপুরে এমপি প্রার্থীর ভিড়

Print Friendly, PDF & Email


নিজস্ব প্রতিবেদক:

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুরের ৪টি আসনের জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রায় শতাধিক নেতা মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এদের মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ৫৯ জন। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) ২০ জন। বাকিরা জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), নিবন্ধন হারা জামায়াত ইসলামীসহ অন্যান্য দলের প্রার্থী। এদিকে এমপি প্রার্থীর ভিড়েও পুরোনো কোনো শঙ্কার কথা প্রকাশ করছেন স্থানীয় জনগণ।

তরুণ ভোটার ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘অভিযাত্রী বাংলাদেশ’ এর সভাপতি তানজিদ হাসান সিহাব বলেন, শুধুমাত্র নির্বাচনের সময় জনপ্রতিনিধিদের দেখা মেলে। এসময় তারা নানা প্রতিশ্রুতি দিয়ে আবার অনেকে বিনিয়োগ করে জনগণের ভোট আদায় করার চেষ্টা করে। আবার অনেক নেতা অভিনয়ের ছলে সাধারণ ভোটারদের বুকে টেনে নেয়। অথচ এরপর শত চেষ্টা করেও আমরা সাধারণ ভোটাররা জনপ্রতিনিধিদের ধারে-কাছেও যাওয়ার সুযোগ পাই না।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘অক্সিজেন’ এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মাহমুদুল হাসান সাফিন বলেন, এমপি প্রার্থীদের মধ্যে যারা ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার লাগিয়ে ও মোটরসাইল শোডাউন করে নিজেদের অবস্থান জানান দেন। লোক দেখানো কিছু কাজ করে মিডিয়ায় হাইলাইট্স হন। নিজের ব্যবসা কিংবা অপকর্মের প্রটেকশনের জন্য রাজনীতিতে অনুদান দিয়ে সাংসদ হতে চান। আমরা তাদের চাই না। আমরা চাই তাকে, যিনি জনগণের নিকট জবাবদিহি করতে পছন্দ করেন। এক কথায় বলতে গেলে, একজন নেতা বা ব্যক্তি কেন এমপি হবেন? আমরা কেন তাকে ভোট দিবো? এই দুটি সহজ প্রশ্নের জবাব যিনি সহজভাবে দিতে পারবেন তিনিই জাতীয় সংসদে আমাদের প্রতিনিধিত্ব করবেন।

লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনের জন্য মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন আওয়ামী লীগের ১৪ জন, বিএনপি’র ৬ জন, জেএসডি, তরিকত ফেডারেশন ও অন্যান্য দলের একজন করে। লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) আসনের জন্য আওয়ামী লীগের ১৮ জন, বিএনপি’র ৮ জন, জামায়াতের ১ জন, জাতীয় পাটির ও জেএসডি’র একাধিক প্রার্থী মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন। লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনের জন্য মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন আওয়ামী লীগের ১৬ জন, বিএনপি’র ৩ জন, জামায়াতের ১ জন। লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি-কমলনগর) আসনের জন্য আওয়ামী লীগের ১১ জন, বিএনপি’র ৩ জন, জেএসডি’র ১ জন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন। এছাড়াও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ থেকে ৪টি আসনের প্রার্থী নির্বাচিত করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

তরুণ এমপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট সালাহ্ উদ্দিন রিগ্যান বলেন, একটা সময় ছিল মানুষ টাকার বিনিময়ে ভোট দিতো। এখন টাকা নেয় কিন্তু ভোট দেয় না। ভোটারদের মাঝে সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার প্রবণতা দিনদিনই বাড়ছে। জনগণ বুঝে কাকে ভোট দিলে কতটুকু লাভ হবে ভবিষ্যতে। তাছাড়া প্রার্থীর যোগ্যতাও বিশ্লেষণ করে দেখেন বলেও জানান তিনি।

এবার লক্ষ্মীপুরের ৪টি সংসদীয় আসনে মোট ভোটার রয়েছেন ১২ লাখ ৩৩ হাজার ৯২০ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটারের সংখ্যা ৬ লাখ ২৪ হাজার ১৫০ ও নারী ভোটারের সংখ্যা ৬ লাখ ৯ হাজার ৭৭০। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তুলনায় এবার ভোটার বেড়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ৬৯৮ জন।

লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ১৯ হাজার ৭৬১ জন। জেলার অন্য ৩টি আসনের তুলনায় সবচেয়ে কম ভোটার এখানেই। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে মোট ভোটার ছিলেন ১ লাখ ৮৫ হাজার ৬৬৯ জন। গত ৫ বছরে ভোটার বেড়েছে ৩৪ হাজার ৯২ জন।

লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) আসনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৭২ হাজার ৪৪৬ জন। জেলার সবচেয়ে বেশি ভোটার এ আসনটিতেই। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এখানে মোট ভোটার ছিলেন ৩ লাখ ২৪ হাজার ৮২২ জন। গত ৫ বছরে ভোটার বেড়েছে ৪৭ হাজার ৬২৪ জন।

লক্ষ্মীপুর-৩ (সদর) আসনে ভোটার রয়েছেন ৩ লাখ ৩০ হাজার ৮৮৮ জন। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে ভোটার ছিলেন ২ লাখ ৭৪ হাজার ৩০৫ জন। গত ৫ বছরের ব্যবধানে আসনটিতে ভোটার বেড়েছে ৫৬ হাজার ৫৮৩ জন।

লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১০ হাজার ৮২৫। এর আগের সংখ্যা ২ লাখ ৬৬ হাজার ৭২৬। গত ৫ বছরে ভোটার বেড়েছে ৪৪ হাজার ৯৯ জন।

শীর্ষ সংবাদ/আপ্র