পারমাণবিক কর্মসূচিতে ফেরার হুমকি উ. কোরিয়ার

Print Friendly, PDF & Email

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যদি কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না করে তাহলে পুনরায় পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচির নীতিতে ফিরে যাওয়া হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির রাষ্ট্রীয় নীতিতে প্রত্যাবর্তনের বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্ব-সহ বিবেচনা করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে দেশটি।

বছরের পর বছর ধরে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি পরমাণু সক্ষমতা বাড়াতে উত্তর কোরিয়া ‘বাইয়ুংজিন’ নীতি অনুসরণ করে আসছিল। ‘বাইয়ুংজিন’ শব্দটি সেনাবাহিনী ও পারমাণবিক কর্মসূচির অগ্রাধিকার বুঝাতে ব্যবহার করে থাকে উত্তর কোরিয়া।

গত এপ্রিলে কোরীয় উপদ্বীপে ঘৃণা ও বিদ্বেষের বিপরীতে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ তৈরির ঘোষণা দেন উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। ওই সময় তিনি বলেন, তার দেশ এখন সমাজতান্ত্রিক অর্থনৈতিক কাঠামো গড়তে মনোনিবেশ করবে।

দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘নিষেধাজ্ঞা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র যদি তাদের অবস্থান পরিবর্তন না করে, তাহলে পিয়ংইয়ং তার পূর্বের নীতিতে ফিরে যেতে পারে।’

‘বাইয়ুংজিন আবারো দেখা যেতে পারে এবং এবারে যদি পূর্বের নীতিতে ফিরে যাওয়া হয় তাহলে এর পরিণাম হবে মারাত্মক।’ উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তাসংস্থা কেসিএনএ শুক্রবার দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

কোরীয় উপদ্বীপকে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের লক্ষ্যে গত জুনে ঐতিহাসিক এক বৈঠকে সিঙ্গাপুরে বসেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উন। কিন্তু পরিস্থিতির খুব বেশি অগ্রগতি দেখা যায়নি।

উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক কর্মসূচি স্থগিত এবং পরীক্ষাগার ধ্বংস করলেও দেশটির ওপর আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞা এখনো বহাল রয়েছে।

পরিপূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ যাচাই-বাছাইয়ের পর কেবল নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটন। কিন্তু পিয়ংইয়ং যুক্তরাষ্ট্রের এই দাবিকে ‘গুণ্ডার মতো’ দাবি বলে নিন্দা জানিয়েছে।

সূত্র : এএফপি।