ফেসবুক ইউজারদের বিকৃত মানসিকতার শিকার তাসকিন, অতঃপর জবাব

Print Friendly, PDF & Email

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এবার নোংরা কমেন্টের শিকার হলেন জাতীয় দলের বাইরে থাকা পেসার তাসকিন আহমেদ। শনিবার পুত্র সন্তানের বাবা হওয়ার পর স্ত্রী এবং নবজাতকের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে ভক্তদের আনন্দের খবর জানাতে চেয়েছিলেন তিনি। অথচ সেটাই যেন কাল হয়ে দাঁড়াল তাসকিন পরিবারের জন্য! একের পর এক নোংরা কমেন্টে ভরে উঠল তার কমেন্টবক্স! শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশি ফেসবুক ইউজারদের এসব নোংরামির জবাব না দিয়ে থাকতে পারেননি ইনজুরি আক্রন্ত এই পেসার। একই সঙ্গে তাসকিনের পাশে দাঁড়িয়ে নোংরা কমেন্টের জবাব দিয়েছেন বেশ কিছু শিক্ষিত নেটিজেনরাও।

তবে টাইগার ক্রিকেটে হিসেবে তাসকিনই যে প্রথম ফেসবুকে নেটিজেনদের এমন বিকৃত মানসিকতার শিকার হয়েছেন তা কিন্তু নয়। এর আগে সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, নাসির হোসেনদেরও এমন ঘটনার মুখোমুখি হতে হয়েছে। আর ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি তো একবার তার ফেসবুক আইডি বাংলাদেশের জন্য ‘রেস্ট্রিকটেড’ করে দিয়েছিলেন!

এবার এদের শিকার তাসকিন। তাদের সন্তানের জন্ম ‘এত তাড়াতাড়ি’ কীভাবে হলো; সেটা নিয়ে বিকৃত মানুষগুলোর ‘গবেষণা’র শেষ নেই! একের পর এক বাজে মন্তব্যের ধেয়ে আসার পর অবশ্য বসে থাকতে পারেননি তাসকিন। তবে তাদের আক্রমণ করে কোনো কথা বলেননি। জবাবটা তিনি দিয়েছেন একেবারে ঠাণ্ডা মস্তিষ্কে এবং ভদ্র ও মার্জিত ভাষায়। কমেন্ট বক্সে টাইগার এই গতি তারকা লেখেন, ‘সবার উদ্দেশ্যে একটা কথা বলি, কেউ কিছু মনে নিয়েন না। আমার বিয়ে হইছে ১১ মাস। দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ থেকে এসেই বিয়ে করলাম ৩১ অক্টোবর এবং বিয়ের বয়স হলো ১১ মাস। সাউথ আফ্রিকা ছিলাম ৪৮ দিন। সব মিলিয়ে হল ১২ মাস ১৮ দিন। আমার পুত্র সন্তান হলো ৯ মাস ২৭ দিনে…। যদি বিয়ের আগে আমার স্ত্রী প্রেগন্যান্ট হতো তাহলে আমার বাচ্চা বিয়ের ৬ মাসের মধ্যেই দুনিয়াতে থাকতো। যাই হোক যাদের ভুল ধারণা ছিল আমাদের প্রতি তাদের জন্য এই মেসেজটি…। ধন্যবাদ।’

এদিকে, তাসকিনের এই কমেন্ট করতে বাধ্য করাকে বাঙালি জাতির জন্য লজ্জা বলে মনে করছেন তার ভক্তরা। এম রহমান নাসিম নামের একজন দুঃখপ্রকাশ করে লিখেছেন, একজন বাবাকেও কৈফিয়ত দিতে হচ্ছে তার সন্তান কীভাবে/কেমনে জন্ম হলো? আমরা কবে শুধরাবো?

আরেকজন মুশফিক বিন হুদা দুঃখপ্রকাশ করে লিখেছেন, একজন বাবার এই কৈফিয়ত পুরা জাতির জন্য লজ্জার। ভাই, সব কথায় পাত্তা দিয়েন না। ফেসবুকটা বহু নোংরা মানসিকতার লোকের হাতে হাতে চলে গেছে। আপনি রিপ্লাই দিলে, তাদের নোংরামিটা একটা প্ল্যাটফর্ম পেয়ে যাবে।

শাহাদত হোসাইন লিখেছেন, ‘মানুষের মধ্যে থেকেই বেড়িয়ে এলো কিছু মুখোশধারী জানোয়ার, যাদের হিংস্র থাবা থেকে মুক্তি পেল না আপনার সদ্য জন্ম হওয়া ছেলেটিও। সরি ভাই, আমাদের মাফ করবেন। আমরা লজ্জিত যে আমরাই সেই বাঙ্গালি জাতি!’