টাঙ্গাইলে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড

Print Friendly, PDF & Email

অনলাইন ডেস্ক :

টাঙ্গাইলের মধুপুরে চাঞ্চল্যকর শিশু বিথী আক্তার ধর্ষণ ও হত্যা মামলার রায়ে এক যুবককে মৃত্যুদণ্ড ও ১লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।
বৃহস্পতিবার দুপুরে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল আদালতের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত যুবক মধুপুর উপজেলার ভুটিয়া গ্রামের সাবাশ আলীর ছেলে কামরুল ইসলাম।
সরকার পক্ষের আইনজীবী নাসিমুল আকতার জানান, গত ২০১৪ সালের ১৯ মে মধুপুর উপজেলার ভুটিয়া গ্রামের আবুল কালামের আট বছরের মেয়ে বিথীকে ধর্ষণের পর হত্যা করে একটি ড্রেনে গাছের পাতা দিয়ে ডেকে রাখে একই গ্রামের সাবাশ আলীর ছেলে কামরুল ইসলাম। পরের দিন সকালে ড্রেন থেকে পুলিশ বিথীর লাশ উদ্ধার করে টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে লাশ হন্তান্তর করে। এব্যাপারে নিহত বিথীর বাবা বাদি হয়ে প্রতিবেশি বখাটে কামরুলকে আসামি করে ধর্ষণ ও হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরবর্তিতে পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত কামরুলকে গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করলে কামরুল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। দীর্ঘ চার বছর পর আসামির উপস্থিতিতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল আদালতের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন আসামি কামরুলের মৃত্যুদণ্ড ও ১লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেন।