দলের জার্সি গায়েই বৈঠকে ক্রোয়েশিয়ার মন্ত্রীরা

Print Friendly, PDF & Email

ফুটবল নিয়ে ক্রোয়েশিয়া প্রেসিডেন্টের উচ্ছ্বাস দেখে মুগ্ধ হয়েছিল বিশ্ববাসী৷ রাশিয়ার জালে যখন ক্রোয়েশিয়ার খেলোয়াড়রা বল জড়িয়ে দিয়েছিলেন, পাকা হয়েছিল সেমিফাইনালের টিকিট, তখন আনন্দে নেচে উঠেছিলেন প্রেসিডেন্ট৷ গোটা বিশ্ব দেখেছিল সে আনন্দ-মুহূর্ত৷

তখনই বোঝা গিয়েছিল, এমন ফুটবলপাগল প্রেসিডেন্ট থাকলে যে কোনও দেশই খেলাধুলোয় উন্নতি করতে পারে৷ মোটে ৪২-৪৩ লক্ষ বাসিন্দার দেশ ক্রোয়েশিয়া তা করেও দেখিয়েছে৷ বিশ্বজয়ের চৌকাঠে দাঁড়িয়ে তারা৷ আর এ মুহূর্তে গোটা দেশই ফুটছে উত্তেজনায়৷ খোদ প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভার সকল সদস্যরাই তাই বৈঠক করলেন দলের জার্সি পরেই৷

নেটদুনিয়া ছেয়ে গিয়েছে ক্রোটদের আবেগের সে ছবিতে৷ জনসংখ্যা কম৷ কিন্তু আবেগ-উদ্দীপনার নিরিখে যে কোনও বড় দেশকে টেক্কা দিতে পারে ক্রোয়েশিয়া৷ সে নমুনা দেখিয়েছিলেন খোদ প্রেসিডেন্টই৷ শুধুমাত্র দলের জার্সি পরে বসার নিয়ম নেই বলে ভিভিআইপি বক্স ছেড়ে দিয়েছিলেন৷ খেলা দেখেছিলেন সমর্থকদের মধ্যে বসে৷ দেশের ভেতরে যে কতখানি উত্তেজনা তা এর থেকেই বোঝা যায়৷

ক্রোয়েশিয়া সে আবেগের দাম দিয়েছেন মদ্রিচরা৷ টানা তিন ম্যাচ ১২০ মিনিট খেলেও হার মানেননি৷ দলকে ফাইনালে তুলেছেন৷ দেখা যাচ্ছে, বিশ্বকাপ ফাইনালে খেলা সবথেকে ছোট দেশ এখন ক্রোয়েশিয়াই৷ দেশের ফুটবল ইতিহাস এই মুহূর্তে ঐতিহাসিক সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে৷ ফাইনালে উঠেই ইতিহাস তৈরি করেছেন রাকিতিচরা৷ বাকি এখন একটা ধাপ৷

তবে এই গৌরবকেও খাটো করে দেখছেন না ক্রোটরা৷ মস্কোয় যা হয়েছে তা আমাদের ছোট দেশের জন্য এক বিরল সম্মানের মুহূর্ত-ক্রোট প্রধানমন্ত্রী তাই মন্ত্রিসভার বৈঠক শুরুই করেছেন এ কথা বলে৷ আর দেশের ফুটবল আবেগের সবথেকে বড় বিজ্ঞাপন হিসেবে খোদ প্রধানমন্ত্রী পরেছিলেন দলের জার্সি৷ সমস্ত ক্রোট মন্ত্রীদের পরনেও ছিল একই পোশাক৷ নিঃসন্দেহে ফাইনালের আগে এই দৃশ্য বাড়তি প্রেরণা দেবে ক্রোট খেলোয়াড়রদের৷