শেখ হাসিনা মনোনীত করলে অবশ্যই নির্বাচন করবো : সাক্ষাৎকারে নয়ন

Print Friendly, PDF & Email
অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন

নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন। একজন বিশিষ্ট আইনজীবী, রাজনীতিবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক। লক্ষ্মীপুর থেকে প্রকাশিত দৈনিক লক্ষ্মীপুর আলো পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক। দীর্ঘদিন সুনামের সাথে লক্ষ্মীপুর জেলা আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগ ও ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

রাজনৈতিক অঙ্গনের এই সুপরিচিত ব্যক্তির জন্ম ১৯৬৪ সালে লক্ষ্মীপুর জেলার চররুহিতা ইউনিয়নের চরমন্ডল গ্রামে। বাবা সুলতান আহম্মদ চৌধুরী এবং মা শামছুন্নাহার চৌধুরী। ছয় ভাই চার বোনের মধ্যে তিনি মেজো। সহধর্মীনী লুবনা চৌধুরী ও দুই মেয়ে নিয়ে তাঁর পরিবার। আওয়ামী লীগের বর্তমান অবস্থান ও সার্বিক বিষয় নিয়ে সম্প্রতি শীর্ষ সংবাদ ডটকম এর সাথে খোলামেলা আলাপ করেছেন তিনি।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : জনগণের আস্থা কেন আওয়ামী লীগে?

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সফল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্ব আজকে শুধু দেশে নয়, সারাবিশ্বে প্রশংসিত। শেখ হাসিনার দক্ষতা ও সফলতার কারণে সাধারণ মানুষ মনে করে যে, রাষ্ট্র পরিচালনায় আওয়ামী লীগই একমাত্র নির্ভরযোগ্য দল, যারা দক্ষতার সাথে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে পারবে। মূলত আমাদের সাংগঠনিক শক্তি এবং সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর নজর কেড়েছে। অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে কি ঘটেছিল তাও ভালোভাবে জানে এদেশের জনগণ। তারা দেশের টাকা বিদেশে পাচার করেছিল। দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করেছিল। হরতাল-অবরোধ দিয়ে এদেশের সাধারণ মানুষদের চরম দুর্ভোগের মুখে ঠেলে দিয়েছিল। অতএব এখন বাংলার জনগণের আস্থা শুধুই আওয়ামী লীগে।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের বর্তমান অবস্থান কেমন দেখছেন?

আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় বর্তমানে লক্ষ্মীপুরের আওয়ামী লীগ অনেক বেশি শক্তিশালী। যার প্রমাণ ইতোমধ্যে আমরা দিয়েছি। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীরা বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। পৌরসভা, উপজেলা এবং সর্বশেষ জেলা পরিষদের নির্বাচনেও নৌকার প্রার্থীরা বিজয় লাভ করেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী আমাদের জনপ্রতিনিধিরা নিরলসভাবে জনগণ ও এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। এছাড়াও লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রত্যেকটি ইউনিটের নেতাকর্মীরা রাজনৈতিক ময়দানে সক্রিয় রয়েছে।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন…

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন একটি সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন হবে বলে আমরা আশাবাদী। আমরা চাই বিএনপির অংশগ্রহণে একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন হোক। আপনারা জানেন, বিএনপির নেতাকর্মীরা গত ১০ বছর যাবত জনবিচ্ছিন্ন। তারা এলাকার মানুষের দুঃখ দুর্দশায় পাশে থাকে না। এমনকি বিএনপি কর্মীরাও প্রয়োজনে নেতাদের কাছে পায় না। অতএব নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগই বিজয় লাভ করবে।

Image may contain: 3 people, people smiling, people standing and indoor

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : নির্বাচনে লক্ষ্মীপুরের ৪টি আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী থাকবে কি না?

লক্ষ্মীপুর জেলার ৪টি আসনের মধ্যে দুটি আওয়ামী লীগের এবং অন্যদুটি জোটের কাছে আছে। অর্থাৎ লক্ষ্মীপুর-০৩ (সদর) এবং লক্ষ্মীপুর-০৪ (কমলনগর-রামগতি) সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আছে। অন্যদিকে লক্ষ্মীপুর-০২ (রায়পুর) এবং লক্ষ্মীপুর-০১ (রামগঞ্জ) আসন মহাজোটের প্রার্থী। তবে এবার লক্ষ্মীপুরের ৪টি আসনেই নৌকার প্রার্থী নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আমরা কাজ করছি। আমরা প্রত্যেকটি আসনেই জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : লক্ষ্মীপুর-০২ (রায়পুর-সদর আংশিক) আসনে আপনি প্রার্থী হবেন কি না?

আমি নমিনেশন চাইবো। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীকে আমাকে মনোনীত করলে আমি অবশ্যই নির্বাচন করবো। মূলত তিনি নৌকা প্রতীকে যাকে মনোনিত করবেন তাকে জয়ী করার জন্য আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করবো।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : রাজনৈতিক জীবন কেমন উপভোগ করছেন?

মানুষের রাজনৈতিক জীবনটা অবশ্যই সুন্দর। কারণ রাজনীতির মাধ্যমে মানুষের সেবা এবং এলাকার উন্নয়ন করা যায়। যা একজন অরাজনৈতিক ব্যক্তির পক্ষে সম্ভব হয়ে উঠে না। মূলত সকল উন্নয়নই হয় রাজনীতিবিদদের মাধ্যমে। এবার হোক তিনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সংসদ সদস্য। একজন রাজনৈতিক ব্যক্তির সুযোগ আছে এলাকার ও জনগণের উন্নয়নে কাজ করার। কিন্তু অন্যদের নেই। অর্থাৎ কাজ করলে একজন রাজনীতিবিদের জীবনটাই সফল ও সার্থক বলে আমি মনে করি।

শীর্ষ সংবাদ ডটকম : আমাদেরকে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আপনাদেরকেও অসংখ্য ধন্যবাদ