লক্ষ্মীপুরে বিশ্বকাপ ফুটবলের আমেজ, আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল সমর্থকদের উল্লাস!

Print Friendly, PDF & Email


নিজস্ব প্রতিবেদক :
সুদীর্ঘকাল থেকে সারাবিশ্বে জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা খেলা নাম ‘ফুটবল’। বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশ ও দেশের মানুষ ফুটবলের সাথে পরিচিত। যার প্রমাণ মিলে বিশ্বকাপ ফুটবল আসরে। এসময় বিশ্বজুড়ে ক্রীড়া প্রেমী মানুষদের মাঝে উৎসব-উদ্দীপনা বিরাজমান থাকে। রাত ১২টা হোক আর ৩টায় হোক, খেলা দেখা মিস করছেন না কেউ। অনেকে তো বড় পর্দায় খেলা দেখার জন্য সারা রাত জেগে থাকে।


ইতোমধ্যে লক্ষ্মীপুরের আকাশে-বাতাসে উড়তে শুরু করেছে সমর্থকদের প্রিয় দলের পতাকা। তবে প্রিয় দলের পতাকার উপরে রয়েছে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার স্থান। সমর্থকদের অনেকে প্রিয় দলের জার্সি সংগ্রহ করতেও ভুল করছেন না। আর্জেন্টাইন সমর্থক দিদার হোসেন অনেক আগেই প্রিয় দলের হোম এবং এওয়ে জার্সি কিনে রেখেছেন। জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ফুটবল জাদুকর মেসীর ভক্ত। আমার ভালো লাগে আর্জেন্টিনার খেলা দেখতে। আমি নিজেও খেলি, আমার ল্যাপটপের গেমসে। ব্রাজিলিয়ান সমর্থক মানিক হোসেন তো নিয়মিত ব্রাজিলকে নিয়েই ফেসবুক মাতিয়ে রেখেছেন। অনেক আগেই প্রোফাইল পিকচারে সংযুক্ত করেছেন প্রিয় দলের পতাকাবাহী ফ্রেম।

সরেজমিনে দেখা গেছে, লক্ষ্মীপুর শহরের অলিতে-গলিতে বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশগ্রহণকারী দেশ সমূহের পতাকা নিয়ে সারাদিন ব্যস্ত সময় পার করছেন হকাররা। তবে হকারদের সংগ্রহে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের পতাকার সংখ্যা খুব বেশি।

কয়েকজন হকারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, চাহিদা বেশি থাকায় এ দুই দেশের পতাকা নিয়েই সমর্থকদের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাচ্ছে তারা। এছাড়াও জার্মানি, স্পেন, ইতালি ও ফ্রান্সের পতাকাও বিক্রি হচ্ছে। ১০ টাকা থেকে শুরু করে ২০০ টাকা পর্যন্ত দামী পতাকা সাধারণ হকারদের সংগ্রহে থাকে। প্রতিদিন শুধু পতাকা বিক্রি করেই ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা আয় করছেন তারা। সপ্তাহ খানেক পরে আয়ের পরিমাণ আরো বাড়বে বলে আশা করছেন হকাররা।

আগামী ১৪ জুন বৃহস্পতিবার ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের উদ্বোধনী ম্যাচ। ১৫ জুলাই ফাইনাল ম্যাচ।