নাবালিকা ধর্ষণ: স্বঘোষিত ধর্মগুরু আসারামের যাবজ্জীবন

Print Friendly, PDF & Email

ভারতে নাবালিকা ধর্ষণের অভিযোগে স্বঘোষিত ধর্মগুরু আসারাম বাপুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এর আগে, ৭৭ বছর বয়সী আসারাম বাপু ও তার চার সঙ্গী নাবালিকা ধষর্ণের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন। আজ বুধবার যোধপুরের বিশেষ আদালত আসারাম  সহ পাঁচ অভিযুক্তকেই দোষী সাব্যস্ত করেছে।

আসারাম পাঁচ বছর আগে ২০১৩ সালে এক কিশোরীকে ধর্ষণ করেছিলেন বলে অভিযোগ উঠে। ২০১৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি ২০১৩ সালের ২ সেপ্টেম্বর থেকে ‘জুডিশিয়াল কাস্টডিতে’ রয়েছেন।

নাবালিকা ধর্ষণ সহ আরো অনেক অভিযোগ ছিল এই স্বঘোষিত ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে। পুলিশের অভিযোগপত্রে ধর্ষণের স্পষ্ট উল্লেখ ছিল। যদিও সাক্ষীদের হত্যা করে মামলা প্রভাবিত করার চেষ্টা হয়েছে বারবার। নয়জন সাক্ষীর ওপর বিভিন্ন সময় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এদের মধ্যে তিনজন প্রাণ হারিয়েছেন। আসারামের ব্যক্তিগত চিকিৎসক অম্রুত প্রজাপত, রাঁধুনি অখিল গুপ্তা ও অপর এক সাক্ষী ক্রিপাল সিংকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

কিন্তু শেষমেশ রেহাই পেলেন না ধর্মগুরু ও তার সঙ্গীরা। পাঁচজনকেই দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।

ভারতজুড়ে প্রায় চারশ’রও বেশি আশ্রম আছে এই স্বঘোষিত ধর্মগুরুর। ভক্তসংখ্যাও অনেক। হাই প্রোফাইল এই মামলা ঘিরে তাই প্রায় দুর্গের চেহারা নিয়েছিল যোধপুর। কেন্দ্রের নির্দেশে সর্বত্র নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যে কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত আসারাম, তিনি থাকেন উত্তরপ্রদেশে।

আদালতের রায়ের পর খুশি নির্যাতিতার বাবা বলেন, এতদিনে আমরা সুবিচার পেলাম। এই লড়াইয়ে যারা পাশে ছিলেন তাদেরকে ধন্যবাদ। দোষীদের কঠোর শাস্তি হোক।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া, এনডিটিভি