লক্ষ্মীপুরে তিনি ভোটার না হয়েও জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত

নিজস্ব প্রতিবেদক :

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে ভোটার না হয়েও ৬ নং ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে মোরগ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হয়েছেন মো. হাসান পাটোয়ারি নামের এক ব্যক্তি।

২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে তিনি জয়ী হন। এই নিয়ে কোনো কোনো ভোটার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। দায়ী করছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে। যদিও নির্বাচনের আগে তার বিরুদ্ধে কেউ নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেনি।

নির্বাচন শেষ হওয়ার পর থেকে এ নিয়ে নানা আলোচনা শুরু হয়। এই ব্যাপারে প্রার্থিতা বাতিল, গেজেট প্রকাশ স্থগিতকরণসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন জানিয়েছেন মোহাম্মদ হোসেন বাবুল নামের এক ভোটার। সোমবার রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বরাবর অভিযোগটি দায়ের করেন তিনি।

এই বিষয়ে ইউএনও তাপ্তি চাকমা জানান, তিনি একটি অভিযোগ পেয়েছেন। তদন্তের পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ইউএনওর নির্দেশনার কথা নিশ্চিত করে রামগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবু তাহের জানান, তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে যাচাই-বাছাইয়ে প্রার্থীদের কেউ অভিযোগ না দেওয়ায় ভোটার কোন ওয়ার্ডের তা সঠিকভাবে দেখা হয়নি। যার ফলে নোয়াগাঁও ইউপির ৬নং ওয়ার্ডে তথ্য গোপন করে প্রার্থী হন মো. হাসান পাটোয়ারি।

২৮ নভেম্বর তিনি ৬ নং ওয়ার্ডে মোরগ মার্কার সাধারণ সদস্য নির্বাচিতও হন। যেহেতু অভিযোগ এসেছে তিনি ওই ওয়ার্ডের ভোটার না, তদন্তে তথ্য গোপন করার বিষয়টি প্রমাণিত হলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান এই নির্বাচন কর্মকর্তা।

এদিকে তথ্য গোপনের অভিযোগকারী রামগঞ্জ নোয়াগাঁও ইউপির শৈরশৈ গ্রামের মোহাম্মদ হোসেন বাবুল জানান,  স্থানীয় সরকার আইনে বলা আছে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হওয়ার জন্য ওই ওয়ার্ডের ভোটার হতে হয় এবং ওই ওয়ার্ডের ভোটার কি না তা নির্বাচন অফিস থেকে যাচাই-বাছাই করার কথা। নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তাদের হাত করে ওয়ার্ডের ভোটার না হওয়া সত্ত্বেও কীভাবে ওই ওয়ার্ডে জনপ্রতিনিধি হন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে জনগণ। আর নির্বাচনকে বির্তকিত করেছে নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তারা। এজন্য তিনি স্থানীয় সরকার আইনের বিষয়টি তুলে ধরে ৬ নং ওয়ার্ডে জয়ী হওয়া হাসান পাটোয়ারির গেজেট প্রকাশ স্থগিতকরণে ইউএনও বরাবর আবেদন করেছেন।

এই ব্যাপারে কথা বলতে যার বিরুদ্ধে অভিযোহ উঠেছে সেই হাসান পাটোয়ারির মুঠোফোনে ফোন দিয়ে বিষয়টি জিজ্ঞাসা করতেই তিনি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন।

Print Friendly, PDF & Email