পর্যটন খাতে চোখ রাঙাচ্ছে ওমিক্রন, দুই লাখ কোটি ডলার ক্ষতির শঙ্কা

করোনাভাইরাস কারণে প্রায় দুই বছর পরও বিশ্বজুড়ে পর্যটন খাতে শঙ্কা কাটছে না।এরইমধ্যে করোনার ওমিক্রন নতুন করে অনিশ্চয়তা তৈরি করেছে বিশ্ব অর্থনীতিতে।

এখন পর্যন্ত বেশ কয়েকটি দেশে ওমিক্রন ছড়িয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে-নেদারল্যান্ডস, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, জার্মানি, ইতালি, ব্রাজিল, বেলজিয়াম, ডেনমার্ক, হংকং, কানাডা, ইসরায়েল ও বতসোয়ানা।

দক্ষিণ আফ্রিকার এ ধরন ঠেকাতে বিশ্বের অধিকাংশ দেশ আবারও সীমান্তে নিষেধাজ্ঞা, লকডাউন ও বিধিনিষেধে ফিরতে শুরু করেছে। ফলে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে অর্থনীতিতে। বিশেষ করে সবচেয়ে বেশি লোকসানের মুখে রয়েছে পর্যটনখাতের ওপর নির্ভরশীল দেশগুলো।

গেল বছরের মতো ২০২১ সালে এসেও অর্থনীতির পুনরুদ্ধার তো দূরের কথা আবারও পর্যটন খাতে ধস নামতে যাচ্ছে।

সম্প্রতি জাতিসংঘের পর্যটনবিষয়ক সংগঠনের (ইউএনডব্লিউটিও) এক প্রতিবেদনে পরিস্থিতি সম্পর্কে বলা হয়েছে, ২০২১ সালেও বৈশ্বিক পর্যটন খাত রাজস্ব হারাবে ২ লাখ কোটি মার্কিন ডলার। এক্ষেত্রে স্বাস্থ্যখাতে তৈরি হওয়া সংকট সবচেয়ে বেশি নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে।

ইতোমধ্যে ওমিক্রনের প্রভাব পড়েছে বিশ্বের তেলের বাজার ও বৈশ্বিক পণ্য সরবরাহের ক্ষেত্রেও। ইউএনডব্লিউটিওর সর্বশেষ তথ্য-উপাত্ত থেকে জানা গেছে, বৈশ্বিক পর্যটক সংখ্যা ২০১৯ সালের চেয়ে ৭০ থেকে ৭৫ শতাংশ কমে যাবে। একই অবস্থা ছিল ২০২০ সালেও।

তবে পর্যটন খাতের ধস ঠেকাতে তিনি কিছু পরামর্শ দিয়েছেন ইউএনডব্লিউটিওর প্রধান জুরাব পলিলিকাশভিলি।

জুরাব পলিলিকাশভিলি বলেন, সবার জন্য টিকা নিশ্চিত করা, ভ্রমণ প্রক্রিয়া সমন্বয় করা, টিকার ডিজিটাল সনদ ব্যবস্থা করা এবং এই খাতে সহায়তা অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রে আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা চালাতে হবে।

Print Friendly, PDF & Email