তামিমের মতো আরও একজন বিশ্বকাপ খেলতে চায়নি: পাপন

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলছেন না বাংলাদেশের তারকা ব্যাটসম্যান ও ওপেনার তামিম ইকবাল। ইনজুরি সমস্যা ও বেশ কিছু দিন আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি না খেলার কারণে এই বিশ্বকাপ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন তিনি। যে কারণে দেশসেরা এই ওপেনারকে ছাড়াই ওমান ও আরব আমিরাতে চলমান বিশ্বকাপে খেলছে বাংলাদেশ দল।

এদিকে, বিশ্বকাপের শুরুতেই হোঁচট খেতে হয়েছে বাংলাদেশকে। বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচেই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৬ হেরে গেছে টাইগাররা। এতে প্রতিযোগিতার মূলপর্বে ওঠার সমীকরণটাই কঠিন হয়ে গেছে বাংলাদেশের জন্য। মূলপর্বে খেলতে হলে গ্রুপপর্বের পরবর্তী দুই ম্যাচ ওমান ও পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে জয়ের কোনও বিকল্প নেই।

এসব ম্যাচে শুধু জয় পেলেই হবে না, রান রেটেও অন্যদের চেয়ে এগিয়ে থাকতে হবে টাইগারদের। তাহলেই বিশ্বকাপের মূলপর্বে খেলার টিকিট পাবে বাংলাদেশ।

রবিবার স্কটিশদের করা ১৪০ রানের জবাবে দুই ওপেনার সৌম্য সরকার ও লিটন দাস- দু’জনই আউট হয়েছেন সমান ৫ রান করে।

ম্যাচের পরদিন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সরাসরিই বলে দিয়েছেন, যারাই খেলুক না কেন, ওপেনার হিসেবে তামিমই সেরা। এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের সভায় উপস্থিত হতে দুবাই গিয়েছিলেন পাপন। সেখান থেকে বাংলাদেশ দলের খেলা দেখতে গিয়েছেন ওমানে।

সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের পাপন বলেছেন, “একটা জিনিস বলে দিচ্ছি, যতো ওপেনারই খেলুক না কেন তামিমের চেয়ে ভালো ওপেনার কেউ নেই। দেখেন কে কী মনে করলো, আমার জানার দরকার নেই। আমি আমার বুদ্ধি বিবেচনায় তামিম সেরা ওপেনার। এই ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।”

এসময় নতুন এক তথ্য দেন বিসিবি সভাপতি। শুধু তামিম নয়, আরও একজন খেলোয়াড় অভিমান করে বিশ্বকাপ না খেলার কথা ভাবছিলেন বলে জানিয়েছেন পাপন। তবে সেই খেলোয়াড়ের নাম জানাননি পাপন। এ বিষয়ে লুকোচুরি বা মনের মধ্যে রেখে দেয়া মোটেও ভালোভাবে দেখছেন না তিনি।

বিসিবি বিগ বস বলেছেন, “একটা জিনিস আপনাদের বলতে পারি, তামিমের না খেলার ব্যাপারটা আপনারা জানার অনেক আগেই আমি জানি। এমনকি আমি ভেবেছিলাম আরও একজন খেলবে না। এরকম তথ্যও আমার কাছে ছিল। কিন্তু খেলছে। আমার কথা হচ্ছে এগুলা মনের মধ্যে রাখার তো কিছু নাই। খেললে খেলবে, না খেললে নাই। সোজা বলে দেবে।”

এসময় তিনি আরও বলেন, “অভিমান করে বলে দেবে আমি খেলবো না, এটা আমার কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। কার সঙ্গে অভিমান? দেশের সঙ্গে? এদেশেই তো থাকতেছে সে। এই ধরনের আবেগের কোনও জায়গা নেই। আমার কথা হচ্ছে কেউ খেলতে চাইলে খেলবে না চাইলে খেলবে না।”

Print Friendly, PDF & Email