আওয়ামী লীগ বনাম এমপি লীগ!

বাণী ইয়াসমিন হাসি

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম সম্মেলনে সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম তার বক্তৃতায় বলেছিলেন, ‘আওয়ামী লীগ শুধু একটা রাজনৈতিক দল নয়, আওয়ামী লীগ একটা অনুভূতির নাম। আমি আওয়ামী লীগের সন্তান, আওয়ামী লীগের ঘরেই আমরা জন্ম। আওয়ামী লীগ যখন ব্যথা পায়, আমারও কিন্তু হৃদয়ে ব্যথা লাগে। আওয়ামী লীগের একটা কর্মী যদি ব্যথা পায়, সেই ব্যথা আমিও পাই। ’

একটা দীর্ঘ লড়াই সংগ্রাম ত্যাগ আর রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ টানা ১২ বছর ক্ষমতায়। দীর্ঘ লড়াইয়ের সময়টা কতজনের মাসের পর মাস ঘরে ফেরা হয়নি। বাবার সাথে ঈদের নামাজটা পর্যন্ত পড়া হয়নি। জীবিত মায়ের মুখটা দেখা হয়নি। জেলের অন্ধকারে কেটে গেছে বছর মাস। পঙ্গুত্ববরণ করতে হয়েছে হাজার হাজার নেতাকর্মীকে।

টানা এক যুগের ক্ষমতা দল আওয়ামী লীগের চরম সর্বনাশ করেছে। সরকারে বিলীন হওয়ার পথে ঐতিহ্যবাহী দলটি। কেন্দ্রের সাথে তৃণমূলের দূরত্ব এতটাই প্রকট যেটা সংগঠনকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। জেলা কমিটি গুলোর দিকে তাকালে দেখতে পাবেন সর্বত্রই ‘ম্যাইম্যান’। সংগঠনে কার অবদান কতটুকু সেটা আর এখন বিবেচিত হয় না। ‘কার লোক’ এটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ পদ পাওয়ার ক্ষেত্রে। হাইব্রিডদের চাষাবাদ এবং ফলন খুবই উচ্চ। এদেরকে জায়গা করে দিতে আওয়ামী লীগের তৃণমূল কোণঠাসা হতে হতে বেদখল হয়ে গেছে!

দীর্ঘ এক বছর পর গতকাল দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় এমপিদের কড়া ভাষায় হুঁশিয়ারি দেন দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা। তৃণমূলে দলীয় নেতা-কর্মীদের ওপর এমপিদের কর্তৃত্বপরায়ণ মনোভাবে ক্ষুব্ধ দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা বলেন, তৃণমূলের দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতা-কর্মীদের দূরে ঠেলে দেন। আবার সব কর্তৃত্ব নিতে কেউ কেউ উপজেলার সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হয়ে যান। সবকিছু এমপিদের নিতে হবে কেন? দলের ওপর এমপিদের এমন খবরদারি চলবে না। দল চলবে নিজস্ব গতিতে। এমপি দলকে সহযোগিতা করবেন। কোনো বাড়াবাড়ি বরদাশত করা হবে না। কে কোথায় কী করছেন, আমার কাছে সব তথ্য আছে। সে বিবেচনায় আগামীতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে।

তৃণমূলে নেতা-কর্মীদের ওপর এমপিদের ‘খবরদারি’ করতে নিষেধ করেছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে দলীয় এমপিদের হুঁশিয়ারি দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, নানা সমীকরণে এমপি মনোনয়ন দেওয়া হয়। তারা দলের মনোনয়নে এমপি হন। এমপি হয়েই দলকে তার ইচ্ছামতো পরিচালনায় মরিয়া হয়ে ওঠেন কেউ কেউ।

ঘুরে ফিরে সৈয়দ আশরাফ ভাইকে মনে পড়ে আমার। উনি বঙ্গবন্ধুকে সার্বজনীন করেছিলেন। কোনো পকেট লীগ চালু করেননি। দেশরত্ন শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করেছিলেন। জেলায় জেলায় ওমুক লীগ তমুক লীগের পরিবর্তে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগটা ছিল উনি যখন সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

‘৭৫ এর পর বা ২০০১ এর নির্বাচনের পর এমন লাখে লাখে ঝাকে ঝাকে আওয়ামী লীগ কিন্তু ছিল না। আজ গোটা দেশটাই যেন আওয়ামী লীগ আর আওয়ামী লীগ। অতিলোভীরা সর্বনাশ করে ছাড়ছে। আওয়ামী লীগের ভিতরে ঢুকে গেছে, জামায়াত, ফ্রীডম পার্টি, বিএনপি। তারা আওয়ামী লীগের সুবিধাবাদীদের সাথে মিলে ভাগবাটোয়ারা করছে। তারা সবাই মিলেমিশে ভালো আছে। কিন্তু ক্ষতি হচ্ছে দেশ ও আওয়ামী লীগের।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গণমানুষের দল। এদেশের মাটি আর মানুষের প্রতিটা অর্জনের সাথে মিশে আছে এই সংগঠনটি। দল হিসেবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সম্ভবত সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছে। ত্যাগী এবং পরীক্ষিত কর্মীদের সাথে দূরত্ব বাড়ছে দলের। এটা মোটেও শুভ লক্ষণ নয়। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কোন লিমিটেড কোম্পানি বা সোশ্যাল ক্লাব নয়। লাখো কর্মীর আবেগ আর রক্তের অপর নাম বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর অনেকের ধারণা ছিল আওয়ামী লীগ আর রাজনীতিতে ফিরে আসতে পারবে না। কিন্তু শেখ হাসিনা সেই অসাধ্য সাধন করেছেন। ফিনিক্স পাখির মতন আওয়ামী লীগকে আবার নতুন করে জাগিয়ে তুলেছেন। নিয়ে গেছেন অন্য উচ্চতায়। সেই রাজনীতি গত ১২ বছরে উইপোকা নীরবে খেয়ে ফেলছে।

দলের দুঃসময় এলে এইসব হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারী সুযোগসন্ধানীদের যে খুঁজে পাওয়া যাবে না সেটি দলের হাই কমান্ডের উপলব্ধি করার সময় এখন। এইসব বসন্তের কোকিল বা কাউয়াদের এখন দূরে সরানোর সময়। তা না হলে নকলের ভিড়ে আসল হারিয়ে গেলে দলকে চড়া মূল্য দিতে হবে।

তপ্ত রাজপথ, অন্ধকার কারাগার, পুলিশের লাঠির আঘাত, বিরোধীদলের হামলা যারা মোকাবিলা করেনি তারাই এখন দল এবং সরকার চালায়। আর যাদের ঘাম, রক্ত আর বিসর্জনে দল ক্ষমতায় এলো তারা আজ সংখ্যালঘু। তারা দল এবং সরকারে চরম ভাবে উপেক্ষিত।

দলের পোড় খাওয়া নেতাকর্মীরা সব কোণঠাসা। দল এবং সরকারে সুবিধাবাদীদের বাড়বাড়ন্ত। নিজস্ব বলয় ভারী করতে দলের ভিতরে উপদল তৈরি করছে এমপিরা। জননেত্রী শেখ হাসিনার দয়ায় এমপি হওয়ার পর সবার আগে এরা আওয়ামী লীগকে ভেঙে টুকরো টুকরো করে। এমপি লীগ প্রতিষ্ঠা করে। দূর্দিনের কর্মীদের মামলা দিয়ে, হাত পা ভেঙে, বাড়িঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করে এলাকা ছাড়া করে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ভালোবেসে যারা রাজনীতিটা করতে চান তাদেরকে দূরে সরিয়ে রাখা হচ্ছে। পদ পদবিকে যারা উপরে ওঠার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করবে না। সংগঠন বিতর্কিত হয় এমন কোন কাজের সাথে জড়াবে না। বরং শ্রম, ঘাম, মেধা ও ডেডিকেশন দিয়ে দলকে সার্ভ করবে তাদেরকেই বঞ্চিত করা হচ্ছে। এমপিরা তাদের বউ, ছেলেমেয়ে, চৌদ্দ গোষ্ঠীকে দিয়ে আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী ও ‌অঙ্গ সংগঠনের কমিটি গঠন করে। সাথে থাকে কিছু হাইব্রিড আর সহমত ভাই। বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ বনাম এমপি লীগ! বিএনপি জামায়াত না, মূল খেলাটা এখানেই।

লেখক: সম্পাদক, বিবার্তা২৪ডটনেট

Print Friendly, PDF & Email