বাংলাদেশ-ইইউ সম্পর্ক শক্তিশালী হবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) এবং বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও শক্তিশালী হবে।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকালে প্রধানমন্ত্রী সরকারি বাসভবন গণভবনে ইইউ’র রাষ্ট্রদূত রেনজি টিরিংকের বিদায়ী সাক্ষাতের সময় তিনি এ আশা ব্যক্ত করেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

ইইউ রাষ্ট্রদূতকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ সব উন্নয়ন প্রকল্পে পরিবেশের বিষয় অগ্রাধিকার দিচ্ছে। কারণ এটি জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশ।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় বাংলাদেশের অভিজ্ঞতা তাদের সঙ্গে শেয়ার করতে আগ্রহ প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘বন্যা, ঘূর্ণিঝড় এবং নদী ভাঙ্গনের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় আমাদের যে অভিজ্ঞতা আছে তা আমরা ভাগ করতে পারি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। যা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় সাহায্য করবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছে। দেশের মানুষ টিকা দেওয়ার ব্যাপারে আগ্রহ দেখাচ্ছে।

টিরিংক প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘ইইউ সদস্য দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় বাংলাদেশকে সহায়তা দেবে।’

নেদারল্যান্ডের বাসিন্দা টিরিংক বলেন, ‘জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে সাহায্য করার জন্য তার দেশের কিছু উচ্চাভিলাষী পরিকল্পনা রয়েছে। তার দেশের জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা মোকাবেলায় দক্ষতা রয়েছে। তারা এটি বাংলাদেশের সঙ্গে আগ্রহী।’

বাংলাদেশকে একটি স্থিতিশীল দেশ হিসেবে বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘পদ্মা বহুমুখী সেতু উন্নয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন এবং প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড। আহমদ কায়কাউস উপস্থিত ছিলেন।

Print Friendly, PDF & Email