জম্মু ও কাশ্মীর সরকারের ‘নতুন শিল্প নীতি ২০২১-৩০’ ঘোষণা

জম্মু ও কাশ্মীর সরকার এপ্রিলে ‘নতুন শিল্প নীতি ২০২১-৩০’ ঘোষণা করেছে। ফলে এখন থেকে বিশ্বের জন্য উন্মুক্ত হয়েছে জম্মু ও কাশ্মীর। ‘নতুন শিল্প নীতি ২০২১-৩০’ বাস্তবায়িত হওয়ার পরপরই কাশ্মীরের ফেডারেশন চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ নতুন নীতিকে স্বাগত জানিয়ে বলেছে, ‘এটি উদ্যোক্তাদের মধ্যে আশা সঞ্চার করেছে।’

সম্প্রতি লেফটেন্যান্ট গভ. বাসির আহমাদ খানের উপদেষ্টা কর্মকর্তাদের উদ্যোক্তাদের আকাঙ্ক্ষাকে অগ্রাধিকার দেওয়ার আহ্বান জানান এবং জম্মু ও কাশ্মীরকে সবচেয়ে বিনিয়োগবান্ধব কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল করার জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টার কথা বলেন।

নতুন শিল্প নীতি অনুযায়ী, আগামী ১৫ বছরের জন্য সবচেয়ে বড় প্রণোদনা হিসেবে জম্মু ও কাশ্মীরের শিল্প উন্নয়নে ২৮,৪০০ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে। ১ এপ্রিল থেকে বাণিজ্যিক উৎপাদনে আসা সমস্ত শিল্প ইউনিটের পাশাপাশি বিদ্যমান ইউনিটগুলো এই নীতির অধীনে প্রণোদনা পাবে।

নতুন শিল্প নীতি আগের নীতিগুলো থেকে আলাদা। পুরনো শিল্প নীতির অধীনে কাশ্মীরের শিল্প খাত দেশের অন্যান্য অংশের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে ব্যর্থ হয়েছে।

এটি প্রথম ব্লক-স্তরের উন্নয়ন প্রকল্প যা দেশীয়ভাবে উপলব্ধ স্থানীয় সম্পদ, দক্ষতা এবং প্রতিভা ব্যবহার করে খুব তৃণমূল পর্যায়ে শিল্পায়নের প্রক্রিয়া গ্রহণ করতে চায়। এই নীতিতে বিশেষভাবে জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষের আকাঙ্ক্ষা পূরণের জন্য এই অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের যুগের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে। বহিরাগতদের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে এসে বিনিয়োগ করতে কোনও বাধা নেই।

সরকারি পরিসংখ্যানুযায়ী, যেদিন থেকে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করা হয়েছে, সেদিন থেকে ৪০টিরও বেশি সংস্থা বিনিয়োগের প্রস্তাব নিয়ে এগিয়ে এসেছে এবং সরকার ১৫০০ কোটি টাকা (১৫ বিলিয়ন টাকা) পর্যন্ত ৩০টিরও বেশি প্রস্তাব গ্রহণ করেছে।

Print Friendly, PDF & Email