আজ জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস

আজ ২৮ এপ্রিল ২০২১, জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে-

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় আইনের আশ্রয় লাভের অধিকার,

লিগ্যাল এইডের মাধ্যমে নিশ্চিত করেছে শেখ হাসিনার সরকার।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সংবিধানে ধনী দরিদ্র নির্বিশেষে সকলের জন্য আইনের সমান আশ্রয় লাভের কথা বারবার বলা হলেও ২০০০ সালের পূর্বে কোনো সরকারই এ লক্ষ্যে কোনো আইন প্রণয়ন করেনি। ফলে অসহায়, দরিদ্র, অবহেলিত জনগোষ্ঠীর আইনি সাহায্য লাভের সহজগম্যতার পথটি ছিল অবরুদ্ধ। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০০০ সালে প্রথম বারের মত অসহায়, অসচ্ছল, দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য আইনি সেবা গ্রহণের পথ সুগম করার লক্ষ্যে প্রণয়ন করে “আইনগত সহায়তা প্রদান আইন- ২০০০”। এরই ধারাবাহিকতায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বাধীন সরকার “সরকারি আইনি সেবা” প্রদানের বিষয়ে ব্যাপকভাবে জনসচেতনতা গড়ে তোলার লক্ষ্যে ২০১৩ সালে মন্ত্রীসভার বৈঠকে ২৮ এপ্রিলকে ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস’ ঘোষণা করা হয় এবং ঐ বছর থেকেই ২৮ এপ্রিল জাতীয়ভাবে আইনগত সহায়তা দিবস পালন করা হচ্ছে।  অসহায়, দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষকে সরকারি আইনি সহায়তা কার্যক্রম সম্পর্কে সচেতন করাই এ দিবসের মূল লক্ষ্য। ধনী, গরীব নির্বিশেষে সকল মানুষ সমানভাবে হবে আইনের শাসন লাভের অধিকারী। তাই জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব আনিসুল হক, এমপি জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার জাতীয় পরিচালনা বোর্ডের মাননীয় চেয়ারম্যান। তাঁর নেতৃত্বে তৃণমূল থেকে কেন্দ্রীয়, সকল পর্যায়ে সরকারি আইনগত সহায়তা কার্যক্রম বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা। অসহায় কারাবন্দীদের, নিম্ন আদালত থেকে উচ্চ আদালতের বিচারপ্রার্থীদের এবং অসহায় শ্রমিকরাও সরকারি খরচে আইনি সেবা পাচ্ছেন। শুধু তাই নয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অংশীদার হিসেবে আইন ও বিচার বিভাগের অধীনে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা বাস্তবায়ন করছে অনবদ্য ডিজিটাল সেবা।

জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা ২০০৯ সাল থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত সরকারি খরচে সারাদেশে ৬ লাখ ৭ হাজার ৮৮০ জন দরিদ্র অসহায় মানুষকে আইনগত সহায়তা প্রদান করেছে। এ পর্যন্ত সর্বমোট ১,৩৭,৬৫৪ টি লিগ্যাল এইড মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালত বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টে ২১ হাজারের অধিক দরিদ্র অসহায় বিচারপ্রার্থী সুপ্রীম কোর্ট লিগ্যাল এইড অফিসের মাধ্যমে আইনগত সহায়তা প্রাপ্ত হয়েছে। আর্থিক অস্বচ্ছলতা ও প্রচলিত বিচার ব্যবস্থার জটিলতায় অনেক কারাবন্দি কারাগারে অসহায় জীবনযাপন করছে। জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা ২০১২ সাল থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত কারাগারে আটকে থাকা ৮৫,৭৫১ জন অসহায় কারাবন্দিকে সরকারি আইনগত সহায়তা প্রদান করে বিচার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করেছে। জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা জুলাই, ২০১৫ সাল থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত ৬৪ টি লিগ্যাল এইড অফিস এবং ঢাকা ও চট্টগ্রাম জেলার শ্রমিক আইন সহায়তা সেল এর মাধ্যমে ৪১,০০২ টি বিরোধ/মোকদ্দমা নিষ্পত্তি করে ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষকে মোট ৫৭,০৯,১৫,২৬৮/- (সাতান্ন কোটি নয় লক্ষ পনের হাজার দুইশত আটষট্টি) টাকা আদায় করে দিয়ে আদালতের মামলাজট হ্রাস করতে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করেছে। সাধারণ মানুষ লিগ্যাল এইড অফিসের বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তি সেবা গ্রহণ করে তাদের সাথে পক্ষদের চলমান ১৩৩৪টি মামলা আদালত থেকে প্রত্যাহার করে নিয়েছে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবকালেও গতবছর মার্চ থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত এ সংস্থার মাধ্যমে ৫৪,৩০৩ জনকে আইনি পরামর্শ প্রদান, ২৩,১৬৯ জনকে আইনগত সহায়তা প্রদান এবং ১৩,৩৫৪টি মামলা বিকল্প বিরোধ পদ্ধতি প্রয়োগের মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়েছে। একই সময়ে সংস্থাটি ক্ষতিগ্রস্ত বিচারপ্রার্থীগণকে চব্বিশ কোটি বত্রিশ লাখ উনচল্লিশ হাজার নয়শত আশি টাকা আদায় করে দিতে সক্ষম হয়েছে। মামলা জট কমানোর লক্ষ্যে লিগ্যাল এইড অফিসগুলোকে ‘এডিআর কর্নার’ বা ‘বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির কেন্দ্রস্থল’ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ২০১৬ সালে সরকারি আইনগত সহায়তা প্রদান কার্যক্রমকে ডিজিটাইজেশন করা হয়েছে। চালু করা হয়েছে জাতীয় হেল্পলাইন কলসেন্টার ১৬৪৩০ যার  মাধ্যমে ২০২১ এর মার্চ পর্যন্ত ১,১১,৭৩৮ জনকে বিনামূল্যে আইনি তথ্য ও পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় লিগ্যাল এইড সেবা নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে চালু করা হয় লিগ্যাল এইড অনলাইন কার্যক্রম।

তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের জনকল্যাণমূলক আইনি সেবার বার্তা পৌঁছে দেওয়া ও সরকারি আইনি সেবার বিষয়ে অধিকতর জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ২০১৩ সালে ২৮ এপ্রিলকে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস হিসেবে ঘোষণা করার পর থেকে প্রতি বছর দেশব্যাপী র‌্যালি, লিগ্যাল এইড মেলা, রক্তদান কর্মসূচি, পথনাটক, সভা-সেমিনার আয়োজনের মধ্য দিয়ে জাতীয় আইনগত সহায়তা দিবস পালন করা হয়। করোনা ভাইরাসজনিত রোগের প্রাদুর্ভাবের কারণে এ বছর সীমিত পরিসরে দিবসটি উদযাপন করা হচ্ছে। দিবসটি উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, আইন মন্ত্রী বাণী দিয়েছেন। দরিদ্র, অসহায় ও আর্থিকভাবে অসচ্ছল মানুষকে আইনি সহায়তা প্রদানের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরে জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হচ্ছে এবং দিবসের গুরুত্ব তুলে ধরতে দেশের বিভিন্ন জেলায় সীমিত পরিসরে স্ব স্ব কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর জেলায় জেলা লিগ্যাল এইড অফিসের মাধ্যমে জানুয়ারি ২০২০ থেকে ফেব্রুয়ারি ২০২১ পর্যন্ত তিন শতাধিক মামলায় আইনগত সহায়তা দেয়া হয়েছে যার মধ্যে ২৮১টি মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে ২৫৯টি এডিআর বা বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির কার্যক্রমের মাধ্যমে বিশ লক্ষাধিক টাকা আদায় করে দেয়া হয়েছে কোন প্রকার মামলা ছাড়াই।

তথ্যসূত্রঃ জেলা লিগ্যাল এইড অফিস, লক্ষ্মীপুর।

Print Friendly, PDF & Email