লক্ষ্মীপুরে সেই `আরিফের’ চিকিৎসার জন্য জেলা প্রশাসকের আর্থিক সহায়তা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

লক্ষ্মীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত কলেজ ছাত্র আরিফ হোসেনের চিকিৎসার জন্য ২৫ হাজার টাকার অনুদানের চেক হস্তান্তর করা হয়েছে। শনিবার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে জেলা প্রশাসক (ডিসি) আনোয়ার হোছাইন আকন্দ অনুদানের চেক আরিফের বাবা মো. সিরাজ ও ভাই মো. শাহিন হাতে তুলে দেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ সফিউজ্জামান ভূঁইয়া ও সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ মাসুম।

এর আগে গত ৫ এপ্রিল কমলনগর উপজেলা করইতলা বাজারে দ্রুত গতির সিএনজি চালিত অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে আরিফের পা ভেঙে যায়। এ ঘটনায় অনলাইন নিউজ পোর্টাল শীর্ষ সংবাদ ও জাতীয় দৈনিক কালের কণ্ঠ সহ  বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদের পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জেলা প্রশাসনের কাছে আরিফের চিকিৎসার জন্য অনুদান দেওয়ার নির্দেশনা আসে। সে লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন ও সমাজসেবা কার্যালয়ের পক্ষ থেকে চিকিৎসার জন্য ২৫ হাজার টাকার চেক অনুদান দেওয়া হয়েছে।

আরিফ লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ও সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের বাসিন্দা।

আরিফের পরিবার সূত্র জানায়, দুর্ঘটনার পর আরিফকে নিয়ে তার বোন বিবি কুসুম পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তির জন্য অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় যায়। যাওার পথে অ্যাম্বুলেন্স চালক পঙ্গু হাসপাতালের প্রতি তাদের মাঝে অনাস্থা তৈরি করে। পরে এক দালালের সহযোগীতায় মোহাম্মদপুর বাবর রোডের ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আরিফের পায়ে তিন দফায় অপারেশনের জন্য ৮০ হাজার টাকা চাওয়া হয়। আরিফের বোন আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে ধার করে টাকা নিয়ে ভাইয়ের অপারেশন করায়। এরমধ্যে সব টাকা শেষ হয়ে যায় তাদের। তিনদিন পর পর আরিফের পায়ের ড্রেসিং করতে ২৬০০ টাকা লাগে এবং প্রতিদিন হাসপাতালে বিভিন্ন খরচ বাবদ ৫০০০ টাকা লাগছিল। আরও অন্তত ৫ বার তার পায়ের ড্রেসিং করতে হবে। এরপর শুকালে সেলাই কাটতে হবে। এমন অবস্থায় হাসপাতাল থেকে কোনোভাবে তাদের ছাড় দিচ্ছিল না হাসপাতালটি। অবশেষে ৯ এপ্রিল রাতে আরিফের চিকিৎসার গুরুত্বপূর্ণ কিছু কাগজপত্র রেখে কর্তৃপক্ষ তাদের ছেড়েছে।

এদিকে ৮ এপ্রিল চিকিৎসার জন্য সহযোগীতা চেয়ে ইউএস বাংলা এয়ারলাইনসের অনলাইন নিউজপোর্টাল ঢাকা পোস্টে একটি তথ্যবহুল সংবাদ প্রকাশ হয়। এটি দেখে ৯ এপ্রিল সকালে ইএস বাংলা এয়ারলাইনের মালিক ঢাকা পোস্ট অফিসে ফোন করে বিনা খরচে আরিফের চিকিৎসার কথা জানায়। ওই রাতেই আরিফকে নারায়ণগঞ্জের ইউএস বাংলা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে আরিফ চিকিৎসাধীন রয়েছে। সেখানে তাকে বিনা খরচে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। খুব শিগগিরই আরিফের আরও একটি অপারেশন হবে বলে জানা গেছে।

আরিফের বোন বিবি কুসুম বলেন, ইউএস বাংলা হাসপাতালে আমার ভাইকে বিনা খরচে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। প্রতিনিয়ত চিকিৎসকরা খোঁজ নিচ্ছেন। হাসপাতালের মালিককে আল্লাহ দীর্ঘজীবী করুন। তবে ওষুধসহ আনুসাঙ্গিক কিছু খরচ রয়েছে। ধারদেনার পর এখন তা আমাদের পরিবারের পক্ষে কষ্টসাধ্য।

আরিফের ভাই মো. শাহিন বলেন, দুর্ঘটনায় পা ভেঙে আরিফ ঢাকা হাসপাতালে ভর্তি আছে। আমাদের পক্ষে তার চিকিৎসার খরচ চালানো কষ্টসাধ্য। ইউএস বাংলা হাসপাতালের মালিক তাকে বিনা খরচে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। আমাদের মতো অসহায়ের পাশে দাঁড়ানো মানবিক মানুষটিকে আল্লাহ সবসময় ভালো রাখুক।

লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক আনোয়ার হোছাইন আকন্দ বলেন, কলেজছাত্র আরিফের চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে অনুদানের ব্যাপারে জানানো হয়েছে। চিকিৎসার খরচের জন্য তার পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। আমরা তার চিকিৎসার খোঁজ-খবর রাখছি।

Print Friendly, PDF & Email